বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সিঙাপুর: সুইস নাগরিককে ট্রেন ধ্বংসের অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছে

গত ১৭ই মে সুইস নাগরিক অলিভার ফ্রিকার আর তাকে সাহায্যকারী ব্রিট্রেনের লিওড ডেন আলেকজান্ডার চাঙ্গি ডিপোতে সিঙ্গাপুর মাস র‍্যাপিড ট্রানজিট সিস্টেম (এসএমআরটি) এর বহি:সীমা ভঙ্গ করেছেন। এই দুইজনের বিরুদ্ধে তার পরে অভিযোগ আছে ট্রেনগুলোর একটির বগিতে স্প্রে রঙ দিয়ে আকার জন্য।

ইউটিউবে এই ঘটনার একটা ভিডিও পোস্ট করা হয় পরের দিন আর অনলাইন সমাজ সেটাকে দ্রুত তুলে ধরেন আর এই ভিডিও দ্রুত সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইট যেমন ফেসবুক, টুইটার, ব্লগ আর ফোরামে ছড়িয়ে পড়ে।

এসএমআরটির কর্মীরা এই ধ্বংসের ব্যাপারটি দেখেন দুই দিন পরে, ১৯শে মে তে, ঘটনা প্রথমে ঘটার পরে। ৫ই জুনে ফ্রিকারকে আদালতে দোষী অভিযুক্ত করা হয় এমআরটি ট্রেনে স্প্রে করে এঁকে সরকারি সম্পদ নষ্ট করার জন্য আর একটা কাটা তারের বেড়া ডিঙ্গানোর জন্য। ইন্টারপোলের একটা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে লিওড ড্যান অ্যালেকজান্ডারের নামে। মনে করা হচ্ছে এই ব্রিটিশ সিঙ্গাপুর ছেড়ে এখন হংকং এ আছেন। সিঙ্গাপুরে ধ্বংসের জন্য ৩ বছর পর্যন্ত জেল আর সর্বোচ্চ ২০০০ সিঙ্গাপুর ডলার জরিমানা শাস্তি হতে পারে আর এর সাথে তিন থেকে আটটা বেতের বাড়ি।

যদিও এসএমআরটি নিরাপত্তা ভঙ্গের ঘটনার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেছে, অসন্তুষ্ট ব্লগাররা প্রশ্ন করেছেন যে ডিপোতে নিরাপত্তা এতো কম কেন ছিল।

সিঙ্গাপুরের সামাজিক-রাজনৈতিক ব্লগার ক্রিস্টেন হ্যান লিখেছেন যে এই ঘটনা এসএমআরটির জেগে ওঠার ডাক:

এসএমআরটি সস্তা বা নিরাপদ কোন উপায়ে এই শিক্ষা পেতনা, তারা এটা কোন অতিরিক্ত মূল্য দেয়া নিরাপত্তা পরামর্শকের কাছ থেকে শিখতে পারতো, বা কোন বোমা রাখার পরে হয়ত।

সিঙ্গাপুরের ডিজাইন ব্লগার পিউর লিব্রে চাচ্ছেন সিঙ্গাপুরের কর্তৃপক্ষ যেন আসল ব্যাপারটি তদন্ত করে দেখে:

ধ্বংসযজ্ঞ নিজে খুব বড় ব্যাপার না। যদিও এটা অপরাধ, তারপরেও এটা নিরাপদ (আর খুব উচ্চমাত্রার শৈল্পিক) ঠাট্টা ছিল। অবশ্যই যে দুইজন এর জন্য দায়ী তাদেরকে সঠিক শাস্তি দেয়া দরকার, সরকার আসল ব্যাপারটা দেখেই নি, যে এসএমআরটি তাদের স্থানে কি ধরনের নিরাপত্তা রাখেন যে দুইজন বিরক্ত তরুণ জনসমক্ষে তার মজা করতে পারে।

সিঙ্গাপুরের ব্লগার রজার পোহ, লিখেছেন যে ফ্রিকার আর অ্যালেকজান্ডারকে শাস্তি না দিয়ে এসএমআরটিকে শাস্তি দেয়া দরকার:

সুইস নাগরিককে অনধিকার প্রবেশ আর ধ্বংসের জন্য অভিযুক্ত না করে সিঙ্গাপুরের উচিত তাকে ধন্যবাদ জানান আর তার হাতে শহরের চাবি দেয়া দরকার।

একা হাতে, সে এসএমআরটির নিরাপত্তার ঘাটতি তুলে ধরেছে আর সময়মত আমাদের জেগে ওঠার ডাক দিয়েছে।

সিঙ্গাপুরের যানবাহনের অপারেটরদের দায়ী থাকা উচিত যদি ট্রেন, স্টেশন আর বাসে কোন ঘটনা ঘটে অপ্রতুল নিরাপত্তার কারনে।

যানবাহন অপারেটরদের দায়িত্ব ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা দেয়া।

2 টি মন্তব্য

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .