বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ম্যাসেডোনিয়া: ফুটবল বিশ্বকাপের লিঙ্গীয় অবয়ব

ডেজান ভেলকোভস্কি ওরফে ভনুকট [নাতি] ম্যাসেডোনিয়ার একজন ব্লগার ও লেখক যিনি এবারের বিশ্বকাপের প্রথম তিন দিনের ফুটবল খেলা দেখে হতাশ। তিনি এসব খেলাকে ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে কম আকর্ষণীয় খেলাগুলোর মধ্যে অন্যতম বলে অভিহিত করেছেন [ম্যাসেডোনিয়ান ভাষায়]।

ভনুকট মনে করে যে রক্ষণশীল কৌশল বা বাংকার ট্যাকটিস (যুদ্ধের সময় গর্ত খুড়ে প্রতিপক্ষের আক্রমণ প্রতিহত করার কৌশল) খেলার মজাকে মাটি করছে, কারণ কোচেরা দলের সব “খেলোয়াড়দের গোলের সামনে দাঁড় করিয়ে রাখছে” এবং সুযোগ পেলে পাল্টা আক্রমণে যাচ্ছে। তিনি মনে করেন ট্রাম্পেটের (ভুভুজোলা নামক দক্ষিণ আফ্রিকার তূর্য বা জোরালো আওয়াজ করা বাঁশি) ক্ষেত্রে ব্লাটারের নেওয়া সিদ্ধান্তটিকে বিবেচনা করা যায় সবচেয়ে বিপর্যয়কর বলে। যে বিষয়টি ফুটবলকে ধ্বংস করেছে তা হচ্ছে যখন অর্থনৈতিক তস্করদের প্রিমিয়ার লীগের (ইংল্যান্ডের প্রথম বিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতা) দলগুলোকে কেনার অনুমতি প্রদান করা হয়। এর চূড়ান্ত ফল হচ্ছে “চমৎকার পরিবেশ” নষ্ট হচ্ছে টিভির ধারাভাষ্যকারদের দ্বারা, যারা একটি দাবা প্রতিযোগিতার চেয়ে কম উত্তেজনার সাথে এই প্রতিযোগিতায় ধারাভাষ্য প্রদান করছে।

এর বাইরেও, প্রচার মাধ্যম যে ভাবে এই প্রতিযোগিতার সংবাদ প্রদান করছে, ভনুকট তার সমালোচনা করছে:

ম্যাসেডোনিয়ার প্রচার মাধ্যম এই বিশ্বকাপ তুলে ধরতে অনিচ্ছুক। তারা গতানুগতিকভাবে সংবাদ প্রদান করছে। তারা সর্বশেষ পর্যন্ত একঘেয়ে ভাবে সংবাদ প্রদান করে যাচ্ছে, কি ভাবে পুরুষেরা কেবল ফুটবল খেলা দেখছে এবং মেয়েদের এ ক্ষেত্রে আর কিছুই করার নেই। সংবাদপত্রগুলো তোতা পাখির মত কিছু নিয়মের তালিকা বলে যাচ্ছে- অন্যরা অখাদ্য জিনিস উগরে দিচ্ছে। এসব পাঠ করা মহান কিছু, সেই সমস্ত লোকের জন্য, সময়গত কিছু অস্বাভাবিকতাকে ধন্যবাদ, তারা ১৯৫০ এর দশকে আটকে রয়েছে!

বলা যায় আমার বেশিরভাগ মেয়ে বন্ধু আমার চেয়ে বেশি ফুটবল পাগল। যে সব খেলার সাথে তারা আবেগে জড়িয়ে রয়েছে, সেই সমস্ত খেলা চলাকালীন সময়ে যদি আপনি টিভির শব্দ কমিয়ে দেবার চেষ্টা করেন, তা হলে তারা আপনার হাত কেটে ফেলবে। আমি চ্যানেল পাল্টে ফেলার কথা উল্লেখ করলাম না, এক্ষেত্রে আপনার শাস্তি হতে পারে পুরুষত্ব হরণ। অন্যদিকে আমার অনেক পুরুষ বন্ধুর ফুটবল খেলায় কোন রকম আগ্রহ নেই। এবং এ সকল কিছুই একেবারে স্বাভাবিক এমন এক সময়, যখন সকলেই তাদের নিজস্ব আগ্রহকে অনুসরণ করে, প্রতিবেশীরা কি বললো সেই বিষয়টি মাথায় না রেখেই। এটা সকলের নিজস্ব মানসিকতার বিষয়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .