বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কলম্বিয়া: প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীরা ইউটিউবে জিজ্ঞাসা করা প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন

কলম্বিয়ার রাজনৈতিক ওয়েবসাইট লা সিলা ভাসিয়া (খালি চেয়ার) টিভি সংবাদ চ্যানেল এনটিএন২৪ এর সহযোগিতায় রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থীদের একটি বির্তকের আয়োজন করে যেখানে প্রার্থীরা মানুষের অনলাইন ভিডিও প্লাটফর্মে জমা দেয়া প্রশ্নের উত্তর দেন, সিএনএন ইউটিউব বিতর্কের অনুকরণে যেটা কেউ কেউ বলেন ওবামাকে হোয়াইট হাউজে যেতে সাহায্য করেছে।

দ্যা এম্পটি চেয়ারের (খালি চেয়ার) সম্পাদক আর পরিচালক জুয়ানিতা লিওন ঘটনার আড়ালের ব্যাপারগুলো ব্যাখ্যা করে পোস্ট দিয়েছেন যে কেন তারা এই বিতর্ক করতে চেয়েছেন, কিভাবে তারা ভিডিওর প্রশ্ন বাছাই করেছেন, কি তাদেরকে ১০ সেকেন্ডে উত্তর দেয়ার সময়সীমার নিয়মটি বাছাই করিয়েছে আর আধ ঘন্টা বেশী প্রচার সময় যা শেষ মুহূর্তে বিতর্কের সাথে যুক্ত হয়েছিল সেই সময়ে কি হয়েছে – প্রার্থীদের কিভাবে তাদের প্রস্তুতি নেই এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে বাধ্য করা হয়। শেষের এই বিষয় নিয়ে তিনি লিখেছেন:

La capacidad de reacción de los candidatos fue impresionante, y también su buena actitud. Someterlos a responder en directo, en televisión, preguntas tan complejas a la velocidad del rayo fue un irrespeto con ellos. Sobre todo teniendo en cuenta lo mucho que está en juego a 15 días de las elecciones. Y ellos, trataron de hacer lo mejor que pudieron. En realidad, es muy bueno para Colombia tener la oportunidad de escoger entre candidatos tan buenos y tan variados.

প্রার্থীদের সাড়া বেশ ভালো ছিল, যেমন ছিল তাদের মনোভাব। তাদেরকে টেলিভিশনে সরাসরি জটিল প্রশ্নের মুখোমুখি করা তাদের জন্য অসম্মানজনক ছিল। এটা আরো বেশী যখন দেখা যায় যে ১৫ দিনের নির্বাচনের সব কিছু এখানে কাজে লেগেছে। আর তারা তাদের সব থেকে ভালো করার চেষ্টা করেছেন। আসলে কলম্বিয়ার জন্য ভালো হয়েছে এমন সুযোগ পাওয়ায় এতজন ভালো আর ভিন্নতর প্রার্থীদের যাচাই করতে পেরে।

এটা নিশ্চিত করার জন্য যে এই বিতর্কে সকল ধরনের মানুষের কাছ থেকে প্রশ্ন থাকবে, লা সিলা ভাচিয়ার পাঠকরা বেশ কয়েক ডজন করে প্রশ্ন পাঠান। এনটিএন২৪ ও অনেক প্রশ্ন দিয়েছে আর ই্য়ুরগেন কাইজার, যে ব্যক্তি প্রথমে ইউটিউব বিতর্কের ধারনা দেন তার ক্যামেরা নিয়ে বেরিয়ে পরেন মানুষের সাক্ষাতৎকার নিতে যারা সাধারনত ইন্টারনেট সংযোগ পাননা।

দ্যা এম্পটি চেয়ার (খালি চেয়ার) ওয়েবসাইটে, তারা বিতর্কের সব থেকে ভাল আর খারাপ মুহূর্তের সমালোচনা প্রকাশ করেছেন, যার মধ্যে ১০ সেকেণ্ড সময়সীমার ব্যাপারটি আছে আর বিতর্কের শেষের ঝামেলাটির উল্লেখ আছে। তারা একটি ভিডিওর উল্লেখ করেন একটি ‘অদ্ভুত’ ট্যাগ দিয়ে এবং আদ্রিয়ানা বায়েনজুলিয়ানা কাস্ট্রোর প্রশ্নটিকে আলাদা করে উল্লেখ করেন; যেখানে পুতুলের মত নকল আওয়াজে শিশু শ্রমের ব্যাপারে ছন্দ করে প্রশ্ন করা হয়।

Dos usuarias, Adriana Baen y Juliana Castro, enviaron un vídeo donde en cambio de salir preguntando, disfrazaron a una muñeca de vendedora ambulante. Con una voz fingida de niña la muñeca preguntó,  “Bolita, bolita a doscientos, señor candidato cómo me podría ayudar. Yo quiero estudiar pero me toca trabajar”. Esto parecía una buena idea, pero como no funcionó la pantalla donde los candidatos veían la imagen, repitieron el video tres veces. La voz fingida y chillona de la niña molestó a los usuarios del set y del Twitter. Y los candidatos en su afán por responder en 10 segundos, para cumplir con la regla, no dieron ninguna solución concreta para el trabajo infantil. En fin, un desastre.

আদ্রিয়ানা বায়েনজুলিয়ানা কাস্ট্রো নামে দুইজন ব্যবহারকারী একটি ভিডিও পাঠিয়েছেন যেখানে সশরীরে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার বদলে তারা একটা পুতুলকে রাস্তার ধারের বিক্রেতা হিসাবে সাজিয়েছিল। বাচ্চার গলায় এই পুতুল জিজ্ঞাসা করছিল, ”ছোট্ট বল, ছোট্ট বল, দু'শ টাকায়। জনাব প্রার্থী, আপনি কি করে আমাকে সাহায্য করতে পারেন। আমি পড়তে চাই কিন্তু আমাকে কাজ করতে হচ্ছে।“ এটা ভালো বলেই মনে হলো, কিন্তু প্রার্থীরা যে স্ক্রিনে দেখবেন সেটা কাজ করছিল না, ভিডিওটা তিনবার দেখানো হয়। বাচ্চার এই আওয়াজ সেটে যারা ছিলেন আর অনেক টুইটার ব্যবহারকারীদের ক্ষুব্ধ করেছিল। সব মিলিয়ে বিপর্যয়।

তবে মনে হচ্ছে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটার অনুযায়ী এই বিতর্কের সব থেকে মনে রাখার মতো চরিত্র ছিল এই পুতুল। #বোলিটাবোলিটা হিসাবে ট্যাগ করার খুব বেশী সময় যায়নি যখন ‘ইন্সট্যান্ট বোলিটা’ ব্লগ জন্ম নিয়েছিল, যেখানে আরও অদ্ভুত সব ব্যাপার হচ্ছিল।

কিন্তু সব কিছু অদ্ভুত ছিলনা। বেশ কিছু প্রশ্ন আর পরিকল্পনা দর্শকদের চিত্রের প্রতিফলন ছিল। একজন তরুণী যখন প্রার্থীদের জিজ্ঞাসা করেন সেইসব বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের জন্য কি করা যায় যাদের যাতাযাতের খরচের সামর্থ নেই, প্রার্থী সান্তোস একটা আকর্ষণীয় আর উচ্চাকাঙ্খার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন:

Cuando una de las ciudadanas que se había retirado de la universidad, pues no tenía recursos para el bus, le preguntó a Santos que podía hacer por ella el candidato de La U salió con una propuesta que no se le había oído. “Vamos a dar una beca crédito a todos los bachilleres que salen de la educación pública para que puedan financiar su educación superior y también financiar su mantenimiento durante los años de estudio. Crédito subsidiado a los estratos más bajos, cero interés real y ese crédito sólo será pagado cuando ese muchacho o muchacha tenga un ingreso estable. Eso saca de raíz entre 300 mil muchachos que todos los años van a engrosar las filas del desempleo”, fue la propuesta de Santos.

একজন নাগরিক যিনি যাতাযাতের খরচ না চালাতে পেরে কলেজ ছেড়ে দিয়েছিলেন সান্তোসকে জিজ্ঞাসা করেন লা উ দলের প্রার্থী হিসাবে তিনি তার জন্য কি করতে পারেন। তিনি তাকে একটি প্রস্তাব শোনান যেটা আগে শোনা যায়নি। “ সরকারি স্কুল থেকে পাশ করা সকল উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রকে আমরা আর্থিক সাহায্য দেব যাতে তারা তাদের উচ্চ শিক্ষা আর একই সময়ে পড়াশোনার পিছনে যা ব্যায় হয় তা মেটাতে পারে। সব থেকে কম আয়ের লোকের জন্য ভর্তুকির অর্থ, শূন্য সুদ আর এই দেনা তখনই শোধ করতে হবে যখন ওই ব্যক্তির একটা স্থায়ী আয় হবে। এর ফলে পরিসংখ্যানে প্রতি বছর প্রায় ৩ লাখ তরুণ বেকারের খাতায় যুক্ত হয় সেই সংখ্যা কমবে,” সান্তোস উত্তর দেন।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের বিতর্কগুলো আপনারা দেখতে পারেন ব্লিপ.টিভি চ্যানেল: লা সিলা ভাসিয়া তে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .