বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

শ্রীলঙ্কা: আকনকে নিয়ে বিতর্ক

আকন একটি কনসার্টে সঙ্গীত পরিবেশন করছে। ছবি ফ্লিকার থেকে সেলসো তাভারেজের সৌজন্যে। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্স এর আওতায় ব্যবহৃত।

আকন একটি কনসার্টে সঙ্গীত পরিবেশন করছে। ছবি ফ্লিকার থেকে সেলসো তাভারেজের সৌজন্যে। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্স এর আওতায় ব্যবহৃত।

আপনারা ভাবতে পারেন একটা সঙ্গীত ভিডিও কি প্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে? আর এন্ড বি সঙ্গীত শিল্পী আর গীতিকার আকন (যার জন্ম হয়েছে আলিউনে বাদারা আকোন থিয়াম নামে) এর ভিডিও সেক্সি চিক, যেখানে স্বল্পবসনা কিছু নারীকে পুলের পাশের পার্টিতে বুদ্ধের মূর্তির সামনে নাচতে দেখা যায়, শ্রীলঙ্কাতে বেশ আলোড়নের সৃষ্টি করেছে। মূর্তিটি পেছনে মাত্র কয়েক সেকেন্ডের জন্য দেখা যায় আর যতটুকু দেখা যায় তাও ফোকাসের বাইরে।

আগামী মাসে আকনের শ্রীলঙ্কাতে যাওয়ার কথা ছিল একটা সংগীতানুষ্ঠানের (কনসার্টের) জন্য। কয়েকদিন আগে প্রায় ২০০ জন ব্যক্তি কনসার্ট প্রযোজনা সংস্থা মহারাজার সামনে একত্র হন, আর পাথর ছুঁড়ে চারজনকে আহত এবং বাড়িটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করেন।

অনলাইন সংবাদ পোর্টাল পেরাম্বারা জানিয়েছে:

এই কনসার্টের বিরোধিতা অনলাইন ফেসবুক দলের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল যার সদস্য সংখ্যা এখন প্রায় ১৩,০০০ অতিক্রম করেছে, আর ফরওয়ার্ড করা ইমেইল আর ব্লগ পোস্ট দ্বারা সমর্থন করা হচ্ছে। মৌখিক বিরোধিতা ২২শে মার্চ এ ভয়ংকর রুপ নেয়, যখন ক্যাপিটল মহারাজার অফিস জনতার আক্রমণের সম্মুখীন হয়। ফেলে রাখা প্লাকার্ড থেকে বোঝা যায় যে আকনের প্রস্তাবিত কনসার্ট নিয়ে এই আক্রমণ হয়েছে।

এটা এখানেই শেষ হয়নি – সংবাদ রিপোর্ট অনুসারে কিছু বৌদ্ধ সন্ন্যাসী শ্রীলঙ্কার সরকারের শরণাপন্ন হন যাতে আকন শ্রীলঙ্কাতে অনুষ্ঠান না করতে পারেন সেটা অনুরোধ করতে। শ্রীলঙ্কা সরকার আকনের ভিসার অনুরোধে না বলেছে এই সমস্ত কারণে – “তার বিতর্কিত ভিডিও চিত্র, গানের অপমানজনক কথা আর দেশে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় দল আর সংস্থার কঠোর প্রতিবাদ।“

আকন একটি বার্তা দিয়েছেন এই জানিয়ে যে তিনি মূর্তির ব্যাপারটা খেয়াল করেননি আর তিনি কাউকে অপমান করতে চাননি।

এটা শ্রীলঙ্কার ব্লগ জগতের বহুল আলোচিত বিষয়ে পরিনত হয়েছে।

ইন্ডি.কা ব্লগের ইন্দ্রজিত সামারাজিভা ভিডিওটিকে বিরক্তিকর মনে করেছেন কিন্তু আক্রমণের সমালোচনা করেছেন:

বৌদ্ধ ধর্মকে সমর্থন করতে হলে আগে তা ব্যবহারে আনতে হবে। ফেসবুকে চ্যাট না করে বা (কথিত) পাথর না ছুঁড়ে, নিজে থেকে কিছুক্ষণ চুপ করে বসে ভাবলে হবে।

আ কলিশন অফ আইডিয়াস ব্লগের ডি ফেসবুকে আকনের উপরে হত্যার হুমকির তিরস্কার করে বলেছেন:

হয়ত আমাদের আর একটু কম ক্রুদ্ধ হওয়া উচিত, একটি সুযোগ দেয়া উচিত আর ভালো চিন্তা করা উচিত। বিশেষ করে তাকে মেরে ফেলার কথা চিন্তা করে নিজেদের বিব্রত না করে।

কালানা সেনারাত্নে গ্রাউন্ডভিউজ ব্লগে এর কারণ হিসেবে সিংহলি-বৌদ্ধ মৌলবাদের উত্থানের কথা বলেছেন:

যদি, এমন এক দুই সেকেন্ড এমন ক্ষোভ আর ঘৃণা সৃষ্টি করতে পারে, বিষয় আরো গুরুতর হতে পারতো যদি পুরো সঙ্গীত ভিডিওতে বৌদ্ধ মূর্তি বা মন্দির দেখান হতো। তাহলে আরো মূলগতভাবে এই সকল বিক্ষোভকারী যারা চিৎকার করে পাথর ছুঁড়ছেন, সন্ন্যাসীসহ, আসলেই বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী? হয়ত জাতি হিসাবে, আমরা সেই স্তরে পৌঁছেছি যেখানে অদ্ভুত প্রতিবাদ যা বৌদ্ধের নামে ঘটে তার সমালোচনামূলক বিশ্লেষণ হওয়া দরকার। এমন না করার বিপদ অনেক বড়, কারন অবশ্যম্ভাবীভাবে, চুপ থাকার ফলে যে বার্তা পৌঁছেছে তাদের কাছে যারা এমন প্রতিবাদে বিব্রত হচ্ছেন তাদের কাছে তা হল ‘গ্রহণযোগ্যতার’ কথা, সকল হিংস্র জিনিষের গ্রহণযোগ্যতা বৌদ্ধ ধর্মের নামে, যার বেশীরভাগ নেতারা করে থাকেন ধর্মের আড়ালে।

আকনকে ঘৃণাকারী শ্রীলঙ্কারদের কাছে গোইং গ্লোবাল এটা বলতে চেয়েছেন:

এই আকনকে হত্যা করার দল তার বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ তুলছে তা তার একটা ভিডিওতে ব্যবহার করা বৌদ্ধ মূর্তিকে ঘিরে। আমি এখন বুঝতে পারছি এটা অবমাননাকর কি করে হতে পারে; কয়েকজন স্বল্পবসনা আপনি যা পবিত্র মনে করেন তাকে কেন্দ্র করে নাচ করছে, আর কেউ যদি এটা একটা মসজিদে করতো তাহলে আমিও ক্রুদ্ধ হতাম। কিন্তু সে শ্রীলংকাতে গান করতে আসবে এই সংবাদে পাগল হয়ে যাওয়া আর ওই লোককে হত্যার হুমকি দেয়া কাউকে সাহায্য করবে না। বিশেষ করে শ্রীলংকানদের।

আ ভয়েস ইন কলম্বো জিজ্ঞাসা করেছেন “সঙ্গীত ভিডিওর প্রযোজকদের জন্যে এই বিষয়টি কি ঠিক আছে, ভিডিওর পিছনে একটা বৌদ্ধ মূর্তি ব্যবহার করা?” লন্ডন, লংকা এন্ড ড্রামস এই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন আর ভাবছেন যে ঈশ্বর বা বুদ্ধ এই ব্যাপারে কি ভাববেন।

দ্যা পাপেটিয়ার আকনের ভিসা মানা করে দেয়ার ব্যাপারে এটি বলেছেন:

শ্রীলংকার সরকার মনে হচ্ছে ভিসা না দেয়ার অভ্যাস গড়ে তুলেছে। যদিও এই বারে এটা সাবধানতা মূলক ব্যবস্থা হিসেবে হতে পারে, তাদের অক্ষমতা ঢাকার চেষ্টা করে।

তবে এই ব্লগার আশা করেন আকন পরবর্তী কোন তারিখে কনসার্টটি শ্রীলন্কায় করবেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .