বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পোল্যান্ড: ছাত্রছাত্রীরা ভূতপূর্ব শিক্ষা মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করছে

এ-লেভেল পর্যায়ের দুজন ছাত্র-ছাত্রী ভূতপূর্ব শিক্ষামন্ত্রী রিসজার্দ লেগুতকোর বিরুদ্ধে মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাদেরকে ‘উচ্ছন্নে যাওয়া বাচ্চা’ বলার জন্য। গত বছর রোক্ল এর ছাত্র-ছাত্রী জুজান্না আর তোমাজ একটি পিটিশনে সই করে তাদের প্রধানশিক্ষককে অনুরোধ করেন তাদের স্কুল বিল্ডিং থেকে যে কোন ধরনের ধর্মীয় চিহ্ন ও প্রতীক সরিয়ে নেয়ার জন্যে। প্রধানশিক্ষক অস্বীকৃতি জানান।

২০০৯ সালের ডিসেম্বর মাসে এই ঘটনাটি পোলিশ মিডিয়াতে বিশদভাবে আলোচিত হয় আর সেই সময়ে বর্তমানে ইউরোপিয়ান সংসদ সদস্য জনাব লেগুতকো এর উপর মন্তব্য করেন যে এই ছাত্র-ছাত্রীরা হচ্ছে ‘উচ্ছন্নে যাওয়া বাচ্চা যারা কেবলমাত্র ঝামেলা করতে আগ্রহী’। এই রাজনীতিবিদ জিজ্ঞাসা করেছেন ‘তাদের কি পরীক্ষার সময়ে অন্য কিছু করার নেই?’ এবং এই প্রস্তাব করেছেন যে এই ছাত্রদের জন্য কোন ধরনের শাস্তি দেয়ার চিন্তাটা খারাপ হবে না।

এই ছাত্র-ছাত্রীরা মন্ত্রীকে সবার সামনে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে এই দাবী তুলেছেন আর ৫০০০পিএলএন জরিমানা হিসাবে দাবী করছেন যেটা সাহায্য সংস্থায় যাবে।

পোলিশ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা মন্তব্য করেছেন:

ফোরাম.গাজেটা.পিএল থেকে পিজ্জ বলেছেন:

ক্রুশ থাকছে আর তাই চার্চ জিতেছে। গণতন্ত্রের মানে সংখ্যাগরিষ্ঠদের শাসন কিন্তু সংখ্যালঘুদের অধিকার সম্মান করে। এখানে আমরা দেখছি সংখ্যাগরিষ্ঠদের একনায়কতন্ত্র। দেয়ালে ক্রুশ টাঙ্গানোর আগে কেউ অনুমতি চেয়েছিল? দেয়ালে ক্রুশ থাকা বাইবেলেও সিদ্ধ না।

ফোরাম.গাজেটা.পিএলহোমো স্যাপিয়েন্স:

ক্রুশ অবশ্য সরিয়ে নেয়া যায় আর এটা যে মূল্যবোধ শেখায় তা ভুলে যাওয়া যায়। প্রশ্ন হচ্ছে, এর বদলে কি আসবে? এই তরুণদের কাছে দেয়ার কি আছে? কিছু না।

মিস্টার বিগবি www.wykop.pl এ বলছেন:

বয়স্ক একজন মন্তব্য করেছেন, তা ঠিক কিনা আমরা সবাই নিজেরা বিচার করতে পারি, কিন্তু আমার মতে এমন সাধারণ কিছুর জন্য মামলা করা দু:খজনক।

ফোরাম.গাজেটা.পিএলদোরোতা বলেছেন:

আমি ক্যাথলিক কিন্তু এই ছাত্রদের সাথে আমি একমত। তারা সহনশীলতা আর ধর্মীয় স্বাধীনতার জন্য লড়ছে।

ইউজুয়ালগার্ল তার ব্লগে লিখেছেন:

বিষয় হচ্ছে, নাস্তিকদের ক্রুশ নিয়ে চিন্তিত হবার কথা না। তাদের একজন বলেছিল যে এটা নিয়ে আলোচনা করা সময়ের ক্ষেপণ কারন এই পথে চলতে থাকলে আমাদেরকে মাংসাশীদের নিষিদ্ধ করতে হবে যারা নিরামিষ ভোগীদের কষ্ট দিতে পারেন…

পোল্যান্ড ক্যাথলিক অধ্যুষিত দেশ আর স্কুল ও অন্যান্য স্থানে ক্রুশ সব সময়ে একটা বিতর্কের বিষয় ছিল।

এই মামলা অনুসরণ করার যোগ্য কারণ পোলিশ মিডিয়া আর ব্লগে এ নিয়ে আমরা বেশ কিছু প্রাণবন্ত আলোচনা আশা করতে পারি।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .