বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

অস্ট্রেলিয়া: সহিংস আক্রমণের বিরুদ্ধে ভিন্দালু প্রচারণা দ্রুত ছড়াচ্ছে


অভিবাসীদের সব সময়ে প্রশংসা করা হয় আমাদের খাবারের পছন্দ বাড়াবার জন্য। বহু সংস্কৃতির খাদ্যের এই ব্যাপারটা বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী কাজে লাগানো গেছে। অস্ট্রেলিয়াতে কিছুদিন ধরে ভারতীয়দের উপরে সহিংস আক্রমণে বেড়ে যাওয়ার ফলশ্রুতিতে এটি হচ্ছে। এখন রেস্তোরার মাধ্যমে তুলে ধরা হচ্ছে বিভিন্ন গোত্রের মধ্যে ভালো সম্পর্কের ব্যাপারটি:

মেলবোর্নবাসী সব সময়ে খাদ্য রসিক হিসাবে পরিচিত, কিন্তু এখন তাদের কাছে নতুন কারণ আছে বাইরে খাওয়ার।

শহরের সম্মান গত ১২ মাসে হুমকির সম্মুখীন হয়েছে ভারতীয় ছাত্রদের উপরে জাতিগত হামলার কারণে।

এ কারণে শহরটিতে যে খারাপ দৃষ্টান্ত তৈরি করছে তাতে বিরক্ত হয়ে মিয়া নর্থপ সিদ্ধান্ত নেন খাদ্যের প্রতি মেলবোর্নের ভালোবাসাকে কাজে লাগিয়ে ভারতীয় আর অভিবাসী গোত্রের প্রতি সমর্থন দেবেন।

২৪শে ফেব্রুয়ারী তিনি সমগ্র অস্ট্রেলিয়ার মানুষকে সহিংস আক্রমণের বিরুদ্ধে ভিন্দালুতে অংশগ্রহনের আহ্বান জানিয়েছিলেন।

অসিদের আক্রমণে বিরুদ্ধে ভিন্দালুর প্রতি আহ্বান জানানো – দ্যা এজ

এ নিয়ে একটা নিবেদিত ব্লগ আছে ভিন্দালু এগেইন্সট ভায়োলেন্স নামে:

আপনার স্থানীয় ভারতীয় রেস্টুরেন্টে আগামী ২৪শে ফেব্রুয়ারী ২০১০, বুধবার খাবার খান।

এই সহিংস আক্রমণ সকল মেলবোর্নবাসীর তাদের বাড়িতে থাকার নিরাপত্তা আর গর্বকে আক্রমণ করছে। আমি চাই মেলবোর্নের ভারতীয় গোত্র- আর সকল অভিবাসী গোত্র- জানুক যে তারা এখানে স্বাগত আর নিরাপদে থাকার তাদের অধিকার আছে।

কেমন হবে যদি মেলবোর্ন এমন শক্তি দেখায় যেখানে সবাই একটা নির্দিষ্ট রাত্রে বাইরে গিয়ে ভারতীয় খাবার খাবে, আমাদের স্থানীয় ভারতীয় গোত্রের সাথে একাত্মতা প্রকাশের জন্য?

মেলবোর্নে জাতিগত আক্রমণের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ।

জেমিঅলিভার.কমে এ নিয়ে একটা থ্রেড পর্যন্ত আছে।

দ্যা ফুডস্কেয়ারি ফুড ব্লগের লক্ষ্য হল ‘মেলবোর্নের ক্ষতিগ্রস্ত পশ্চিমের শহরতলীকে তুলে ধরা আর এরা যে মূল্যবান সে ভাবেই তুলে ধরা।‘ তারা এই ধারণাকে গ্রহন করেছেন:

আপনারা ভাবতে পারেন এটা এমনি কথা, গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা মোকাবেলায় একটা অলস, ফাঁকা উদ্যোগ। আমি একমত না! এটা একটি ১০০% তৃণমূল প্রচারণা যা এমন একজন মহিলা দ্বারা শুরু করা যার কোন রাজনৈতিক প্রজ্ঞা বা যোগাযোগ নেই, কারণ সাম্প্রতিক ঘটনায় তিনি মর্মাহত হয়েছিলেন।

আক্রমণে বিরুদ্ধে ভিন্দালু

ফুডস্টাফমেলব এই মতামতের প্রতিধ্বনি করেছেন:

বিতর্ক তুঙ্গে উঠছে যে এই আক্রমণ জাতিগত কারণে কিনা, তবে জাতিগত হোক বা না হোক একটা জিনিষ নিশ্চিত, বিশ্বের দৃষ্টি মেলবোর্নের দিকে ঘুরে গেছে আর আমাদের রাস্তা, বিশেষ করে ভারতীয় গোত্রের ব্যবহৃত রাস্তার নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

তাহলে আপনি কিসের অপেক্ষায় আছেন? তাদের ওয়েবসাইটের দিকে যান, আপনার ইচ্ছা নথিভুক্ত করুন আর আশা করা যায় একসাথে আমরা জোরালো একটা বার্তা পাঠাতে পারবো যে মেলবোর্ন তার ভারতীয় গোত্র আর তারা যা দিচ্ছে তা নিয়ে গর্বিত।

আক্রমনের বিরুদ্ধে ভিন্দালু

ফেসবুকের একটা ইভেন্ট (অনুষ্ঠান) আছে যেখানে আপনারা যোগদান করতে পারেন।

এটা অবশ্য টুইটারেও আছে। অনেক ভালো মন্তব্যের মধ্যে একটি টুইট হচ্ছে: “একজন অচেনা লোক আমাকে এখনি আমন্ত্রন করেছেন ২৪শে ফেব্রুয়ারীতে তাদের বাড়িতে ভারতীয় বাড়িতে রান্না খাবার খাওয়ার জন্য। খুবই খুশি যে এই অনুষ্ঠান অনেকের কাছে কিছু মানে রাখছে।“ ১৬ই ফেব্রুয়ারী বিকাল ১:১২, ওয়েব থেকে। যদি গুগলে ব্লগ অনুসন্ধান করেন এই শব্দের কিওয়ার্ড দিয়ে, তাহলে শত শত পোস্ট দেখবেন। এগুলো বিশ্বব্যাপী আছে, যেহেতু এই ধারণা দ্রুত প্রচার পেয়েছে।

ভারতীয় অনলাইন মিডিয়া এই গল্প উৎসাহের সাথে গ্রহন করেছে:

অস্ট্রেলিয়াতে ভারতীয় নাগরিকদের উপরে আক্রমণের প্রতিবাদে মেলবোর্নের একজন ওয়েব ডিজাইনারের ইন্টারনেট প্রচারণা ‘ভিন্দালু এগেইন্সট ভায়োলেন্স’ (সহিংস আক্রমণের বিরুদ্ধে ভিন্দালু) পরিণত হয়েছে সাফল্য গাথায়।

রিপোর্ট অনুসারে, ইন্টারনেটে ১০,০০০ লোকের বেশী যোগদান করেছেন মিয়া নর্থপের প্রচারণায় – কেউ কেউ নিউ ইয়র্কের মতো দূর অঞ্চল থেকেও।।

… অ্যামস্টারড্যাম, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া আর অস্ট্রেলিয়ার সকল রাজধানীতে রাতের খাবার প্রচারণা অনুষ্ঠিত হবে।


ওজ ভারত হিংস্রতা – বিরোধী ‘ভিন্দালু’ প্রচারণা বিশ্বের সব স্থানে বিপুল সাফল্যমণ্ডিত হয়েছে।

ভালো লাগে এরকম ভালো কোন কাহিনি ছড়িয়ে দিতে।

আসুন! আমাদের সাথে যোগদান করুন ‘শান্তির জন্য পাঁপড়’ প্রচারণায়, যেমন একজন পরামর্শ দিয়েছেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .