বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

3 ফেব্রুয়ারি 2010

গল্পগুলো মাস 3 ফেব্রুয়ারি 2010

পোস্টটি পড়ুন

চীন: চীনা টুইটার ব্যবহারকারীদের উপরে জরিপ

  3 ফেব্রুয়ারি 2010

কেনেঙ্গবা গত ২৭শে জানুয়ারী, ২০১০ তারিখে চীনা টুইটার ব্যবহারকারীদের উপরে একটা জরিপ প্রকাশ করেন। চীনে টুইটারের ইতিহাস দেখানো ছাড়াও, এই ব্লগার জানতে চান কেন চীনা নেটিজেনরা গ্রেট ফায়ার ওয়াল পার হওয়ার এই কষ্টের মধ্যে দিয়ে যান টুইটারে ঢোকার জন্য। তিনি প্রায় ১০০০টি সাড়া পান আর প্রাপ্তিগুলো তার ব্লগে পোস্ট করেন।

জাপান: ওকিনাওয়ায় মার্কিন সেনাবাহিনীর ঘাঁটি তুলে নেয়ার জন্যে প্রতিবাদ

  3 ফেব্রুয়ারি 2010

কুরাশী ব্লগে টেন থাউজ্যান্ড থিংস জানাচ্ছে যে ওকিনাওয়ায় মার্কিন সেনাবাহিনীর ঘাঁটি তুলে নেয়ার জন্যে প্রতিবাদ করতে সপ্তাহান্তে ৬০০০ লোক জড়ো হয়েছিল।

হাইতি: আঞ্চলিক দখলদারিত্বের প্রশ্নে ব্লগারদের প্রতিক্রিয়া

  3 ফেব্রুয়ারি 2010

ভূমিকম্পের পর দুই সপ্তাহ সময় ধরে হাইতির ব্লগাররা হাইতি সরকারের কাজকর্ম নিয়ে বেশ গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন করছে। এখন তারা প্রতিবেশী দেশ এবং ক্যারিবিয়ান দ্বীপসমূহের প্রতিক্রিয়া নিয়ে আলোচনা করছে। এখানে ফরাসীভাষী যে সমস্ত পোস্ট এই সমস্ত প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করছে সে সবের পর্যালোচনা তুলে ধরা হল।

পোস্টটি পড়ুন

হাইতি: সাহায্যে আসার আগেই, প্রবাসীদের পাঠানো অর্থ দেশ পুনর্গঠনে সাহায্য করতে পারে

  3 ফেব্রুয়ারি 2010

যখন হাইতিতে টেলিফোন সংযোগ ব্যবস্থার পুনরুদ্ধার ঘটানো সম্ভব হয়, তারপর বিদেশ থেকে পরিবারগুলোর জন্য তারের মাধ্যমে (টেলিফোনের মাধ্যমে) টাকা আসতে শুরু করে। এমনকি আন্তর্জাতিক সাহায্য আসার আগেই তারা দিয়ে এই টাকা দিয়ে তারা বাড়ি ঘরের পুনর্নির্মাণ শুরু করে। হাইতির মোট জাতীয় আয়ের প্রায় ৩০ শতাংশই আসে বিদেশে বাস করা পরিবারের সদস্যদের পাঠানো টাকা থেকে। এটি ১২ জানুয়ারিতে সংঘটিত ভূমিকম্পের আগের হিসাব।

পোস্টটি পড়ুন

হাইতিতে গ্লোবাল ভয়েসেস: পুনর্নির্মাণ বিষয়ে

  3 ফেব্রুয়ারি 2010

যখন হাইতিতে বিচ্ছিন্নভাবে পরিষ্কার অভিযান চলছে তখন সেখানে এক বিতর্ক ছড়িয়ে পড়েছে যে ১২ জানুয়ারিতে যে সমস্ত বাড়ি ও অন্য ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বা ধ্বংস হয়ে গেছে সবচেয়ে সেরা কোন উপায় সেগুলোকে নতুন করে নির্মাণ বা ঠিকঠাক করা যায়। হাইতির রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্স থেকে জর্জিয়া পপলওয়েল বাড়ি ধ্বংস হয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের আশ্রয়ের জটিলতার কথা তুলে ধরছেন।