বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরাক, সৌদি আরব: ধর্ম যাজকদের যুদ্ধ

ঘটনার শুরু যখন সৌদি সুন্নি ধর্মযাজক মোহাম্মদ আল-উরাইফি ইরাকি শিয়াদের প্রধান আয়াতুল্লাহ আলি আল-সিস্তানিকে শুক্রবারের প্রার্থনায় আক্রমণ করেন।

ইরাকের সব থেকে সম্মানিত শিয়া ধর্মযাজক সম্পর্কে সৌদি ধর্মযাজকের অপমানকর মন্তব্য, বাগদাদ আর রিয়াদের মধ্যকার সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে শুক্রবারের খুৎবাতে, শীর্ষস্থানীয় ওয়াহাবী ধর্মযাজক, মোহাম্মদ আল উরাইফি, আয়াতুল্লাহ আল–সিস্তানিকে ‘নাস্তিক ও নীতি ভ্রষ্ট বলেছেন। তিনি ইরাকি শিয়াদের উপরেও আক্রমণ করেছেন তাদেরকে ইয়েমেনের হুতিদের সাথে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে ইরানের সমর্থন নিয়ে ষড়যন্ত্র করার জন্য। ইতোমধ্যে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী নুরী আল মালিকি সৌদি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানদের কঠোর সমালোচনা করেছেন ধর্মযাজকের মন্তব্যের পরে। তিনি বলেছেন সৌদি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অভ্যাস আছে শিয়া ধর্মযাজকদের বিরুদ্ধে আক্রমণ করার শিয়া মুসলিমদের প্রতি তাদের বিরাগ মনোভাবের কারনে, এএফপি জানিয়েছে।

নিউজ এসেনশিয়ালের সৌজন্যে।

পরে লেবানিজ রাজনৈতিক দল হেজবাল্লাহ ও সৌদি ধর্মযাজকের নিন্দা করেছেন। অবশ্য দ্যা অ্যাঙ্গরি আরব ব্লগের লেবানিজ আমেরিকান ড: আসাদ আবু খলিল এই দলকে ভেদাভদকারী দল হিসেবে অভিযোগ করেছেন, আর তার ব্লগে নতুন একটা পোস্ট লিখেছেন, যেখানে আল-সিস্তিনিকে ‘আমেরিকার দখলের সব থেকে বড় সাহায্যকারী।‘ বলে জানিয়েছেন:

কেউ যদি সন্দেহ করে যে হিজবুল্লাহ একটা শিয়া উপদল, তাদের উচিত দলের পক্ষ থেকে প্রধান আয়াতুল্লাহ সিস্তানির সমর্থনে করা যাচ্ছেতাই মন্তব্যটা পড়া- ইরাকে আমেরিকার দখলের সব থেকে বড় উপকার, ’আল্লাউই আর চালাবি একত্র করে যা হয় তার থেকেও বেশী'। মন্তব্যের কথা এত শ্রদ্ধামিশ্রিতভাবে লেখা: এটা সিস্তানির ব্যাপারে কথা বলছে আর যোগ দিয়েছে: ‘তার ছায়া যেন দীর্ঘস্থায়ী হয়।‘ এই লোকের কোন ছায়া পর্যন্ত নেই: সে দেশের আমেরিকার দখলে সেটা দান করে দিয়েছে। বলা হয়েছে যে সিস্তানির ক্ষতি করা দলের ক্ষতি করার সামিল। কোন তত্ত্ব নেই এটা ব্যাখ্যা করার শিয়াদের উপদলীয় সংহতির প্রয়োজন ছাড়া।

ইরাকি ব্লগার ইরাকি মজোর অন্য দৃষ্টিভঙ্গি ছিল। তিনি বলেছেন:

বাহ। ইরাকে আমেরিকার দখলে সিস্তানি ‘সব থেকে বড় সাহায্যকারী’ ছিল, ক্যালিফোর্নিয়ার সুত্রবিহীন প্রফেসরের কথা অনুসারে। এই লোক কি করে প্রফেসর হয়েছে?? সিস্তানি কি আমেরিকানদের সাহায্য করেছেন শান্তি তুলে ধরে আর বারবার সংঘাতের শেষ চেয়ে? হ্যাঁ তিনি তা করেছেন।

নাকি সিস্তানি আমেরিকার ‘দখলে’ সাহায্য করেছেন বিক্ষুব্ধ প্রতিহিংসা থামিয়ে যখন সুন্নি আরব সন্ত্রাসীরা ইরাকিদের গণ হারে মেরে যাচ্ছিল? হ্যাঁ তিনি তা করেছেন!

সিস্তানি প্রথম সারির শিয়া ধর্মযাজক যিনি সংহতির ডাক দিয়ে ২০০৭ সালে বলেছেন: “আমি আপনাদের কাছে আহ্বান করছি আপনাদের সুন্নি ভাইদের সাথে পার্থক্যকে ভুলে যাবার জন্য।“

কিন্তু আসাদ আবু ইরাকের সংঘর্ষ বন্ধে সিস্তানির প্রচেষ্টার কথা কখনো বলেন নি। হ্যাঁ, সিস্তানি আমেরিকানদের সাহায্য করেছেন ইরাককে সুস্থির করতে শিয়াদের উদ্বুদ্ধ করে তারা যাতে নিরপরাধ সুন্নি আরবদের আক্রমণ না করে, যখন সুন্নি আরবদের সন্ত্রাসবাদ চলছিল তখনো। সিস্তানির এটা করা কি ভুল ছিল? নাকি আসাদ আবু ও আরব সুন্নিরা সিস্তানির উপরে এখনো বিরক্ত, ইরাকে তার প্রচণ্ড প্রভাবের কারনে, উনি যে ইরাকি শিয়াদের বলেননি আমেরিকানদেরকে মারার জন্য তাই? আসাদ আবু, ধিক্কার!

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .