বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ব্রাজিল: নেট-নাগরিকরা মজা পাওয়ার জন্য দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনীতিবিদদের গুলি করছে

ব্রাজিলের ফেডারেল ডিস্ট্রিক্ট বা কেন্দ্রীয় জেলার প্রশাসক জোসে আরুডা। তিনি এবার নিজেকে কেন্দ্রীয় পুলিশী তদন্তের মুখে আবিষ্কার করেন । এটা ব্রাজিলের কেন্দ্রীয় রাজনীতিবীদদের দুর্নীতি কেলেঙ্কারির সাম্প্রতিক তম আবিষ্কার করা নেটওয়ার্ক বা সংযোগ। এরপর হোসে আরুডাকে অনলাইনে নেটিজেনরা ভিডিও গেম বা খেলায় গুলি করছে। এই গেম বাজারে মুভিমেন্টো ব্রাজিলিয়া লিম্পা (পর্তুগীজ ভাষায়, “ব্রাজিলের দুর্নীতি পরিষ্কার করা”) নামক প্রচারণার উদ্বোধন করে। এই গেমে অরুডা এবং পানেট্টোনেকে (এক সময় এটি ছিল বড়দিনের এক জনপ্রিয় কেকের নাম, কিন্তু এখন তা দেশটির দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের এক প্রতীকে পরিণত হয়েছে) সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে। গেমের ভেতরে এই দু'টি বস্তু বাতাসে উড়ছে। পাওলা লিমা ব্যাখ্যা করছে, কিভাবে এই গেমটি খেলতে হবে [পর্তুগীজ ভাষায়]:

O passatempo é simples – e feito em cima do que se tornou o símbolo da crise, o panetone. O jogador tem de destruir os quitutes natalinos que aparecem na tela, assim como os bonequinhos do governador José Roberto Arruda. Ao fim do jogo, a mensagem: “Você ajudou a limpar Brasília”.

এই গেমটি খুব সাধারণ এবং এটি এক সমস্যার প্রতীক হিসেবে আসে। এই সমস্যা সমাধানের উপর ভিত্তি করে গেমটি খেলতে হয়। এখানে পানেট্টোনে সেই প্রতীক। এই খেলায় গেমার ওরফে খেলোয়াড়রা বড়দিনের সুস্বাদু এই কেককে ধ্বংস করে, যা কম্পিউটারের পর্দার উপর ভেসে ওঠে, এর সাথে আসে গভর্নর জোসে রবার্টো আরুডার ছবি। খেলার শেষে একটি বাক্য “আপনি ব্রাজিলের ময়লা পরিষ্কার করার কাজে সাহায্য করেছেন” প্রদর্শিত হতে থাকে।
মুভিমেন্টো ব্রাজিলিয়া লিম্পা

মুভিমেন্টো ব্রাজিলিয়া লিম্পা

আরুডার পানেট্টোনে বা বড়দিনের কেক। ব্রাজিলের দুর্নীতি পরিষ্কার করার জন্য দুর্নীতিবাজ রাজনীতিবীদদের উপর আঘাত করুন। পানেট্টোনেকে আঘাত করলে ১ নাম্বার অর্জন করবেন। আরুডাকে আঘাত করলে ৫ নাম্বার পাবেন। আমরা ‘ক্লিন আপ ব্রাজিলিয়া মুভমেন্ট’ বা ‘ব্রাজিলের দুর্নীতি পরিষ্কার কর’ নামক আন্দোলনকে সমর্থন করি।

এই গেমের ধারণা পাওয়া গেছে নভেম্বর, ২০০৯ এর, এক ঘটনা থেকে। সে সময় কেন্দ্রীয় পুলিশ আরুডার বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণ এবং সরাসরি ও সক্রিয়ভাবে দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগ আনে। এক সিন্ডিকেট বা অনেকগুলো কোম্পানী মিলে একটি প্রতিষ্ঠানের পক্ষে তিনি ঘুষ নিয়ে কাজ করেছেন বলে অভিযোগ তৈরি হয়। জানা যায়, প্রতি মাসে তাকে যা প্রদান করা হত তার মোট পরিমাণ ৬০০,০০০ ব্রাজিলিয়ান রিয়াল (৩৪০,০০০ ইউএস ডলার প্রায়)। এই পরিমাণ মুদ্রা মেয়র এবং তার সহযোগীদের প্রদান করা হয়। তার এই অন্যায় কাজ ক্যামেরায় ধরা পড়ে যায়। এরপর ইউটিউবের মাধ্যমে এটি সারা ব্রাজিলে ছড়িয়ে পড়ে। আরুডা সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি দাবি করেন, এই টাকা গরিবদের পানেট্টোনে কেক কেনার জন্য নেওয়া হয়েছিল।

বলার প্রয়োজন নেই, এই অজুহাত দুর্নীতির সাথে মিশে গছে এবং তা বেশ কিছু কৌতুকের জন্ম দিয়েছে; এমনকি শিশুরাও এখন তাকে খুঁচিয়ে মজা পায় এবং সরকার থেকে তাকে বের করে দিতে বলে। এই ঘটনাকে ঘিরে ইউটিউবে অনেক গান, এনিমেশন এবং ভিডিও দৃশ্যে তৈরি হয়েছে। সবকিছুতেই গল্পটি পুনরায় বলার জন্য আগে থেকে ধারণ করা জনতার কিছু দৃশ্য ব্যবহার করা হয়েছে। এর সাথে অনেক বিদ্রূপ জুড়ে দেওয়া হয়েছে। মনে হচ্ছে ব্রাজিলিয়ানরা হাস্যকৌতুক এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে নিশ্চিত করছে যে জনতা এই ঘটনার স্মৃতি ভুলবে না। রাজনীতির বেলায় ব্রাজিলের জনতার পূর্বের ঘটনা ভুলে যাওয়ার কারণে খুবই বিখ্যাত।

এইচটিটিপি://ডাব্লিউডাব্লিউডাব্লিউ.রেডিওরিটুইট.কম.ব্রা/ব্লগ/

এইচটিটিপি://ডাব্লিউডাব্লিউডাব্লিউ.রেডিওরিটুইট.কম.ব্রা/ব্লগ/

এই ধারাবাহিক বেশ কয়েকটি দৃশ্যে (পর্তুগীজ ভাষায়) অভিনেতা এমন এক প্রতিক্রিয়া তৈরি করছে, যা দেখে মনে হয় গভর্নর এবং তার সহযোগীরা টাকা লুকাচ্ছে। তারা জাঙ্গিয়া, মোজা এবং জ্যাকেটের ভেতরে টাকা ভরছে। এই দৃশ্যে অভিনেতার অবশ্য টাকার বদলে পানেট্টোনে কেক ব্যবহার করেছেন।

এমসি পোউলাডা দু'টি মজার দ্রুত লয়ের গান তৈরি করেছে (দু'টি গানই পর্তুগীজ ভাষায় তৈরি)। এটি করা হয়েছে, “প্যান্ডেরার বাক্স” নামের কেলেংকারির ঘটনা উদযাপন করার জন্য।

এমসি পাউলুদা/ইউটিউব

এমসি পাউলুদা/ইউটিউব


“আরুডার বহিষ্কার! প্যান্ডেরার বাক্সের মজার গান” (উপরের) ভিডিও দৃশ্যের শুরু এক কণ্ঠস্বর দিয়ে। যে বলছে, “ঠিক আছে, চল লাভের হিস্যা গুনি। ওহ না, কেন্দ্রীয় পুলিশের দল! আমাদের ধর্ষণ করা হয়েছে, এখন আমরা কি করব? টাকাগুলো জাঙ্গিয়ার ভেতরে ভরে নাও।, না না তোমার মোজার ভেতরে ভর… না, তোমার জাঙ্গিয়ার ভেতরে ভর! এটা কোন বিষয় না, চল যাই”!!!
এমসি পাউলুদা/ইউটিউব

এমসি পাউলুদা/ইউটিউব

“অরুডা এবং লুকানো টাকার গান”-এ, এমসি পাউলোডা এক আওয়াজ ঢুকিয়ে দিয়েছেন। এই আওয়াজ বলছে: “তোমার টাকাগুলো কোথায়? এগুলো সব লুকানো রয়েছে তোমার মোজা, কোট, জাঙ্গিয়া এবং ব্যাগে”।

“প্যান্ডেরার বাক্স” বিষয়ক তদন্ত বড়দিন এবং নতুন বছর শুরু হবার পর আবার আরাম হবে, যখন সুপ্রীম কোর্ট বা সর্বোচ্চ আদালত এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রণালয়ের এক সংসদীয় তদন্ত কমিশন (সিপিআই) এই ঘটনার বিশ্লেষণ করবে। যদি এই প্রতিষ্ঠান, এর চেয়ে কার্যকারী কোন তদন্ত পদ্ধতি বের করতে না পারে, তা হলে ধীর গতির এক আমলাতান্ত্রিক পদ্ধতি এক অভিসংশনের মত ভীতিজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে পারে এবং পরবর্তী নির্বাচনের আগে তার পদ থেকে তাকে অপসারিত হতে পারে। পরবর্তী নির্বাচন অক্টোবর, ২০১০-এ অনুষ্ঠিত হবে।

গেমাসক্তি

“আরুডার পানেট্টোনে” গেম, ব্রাজিলিয়ান রাজনীতিবিদদের নানাবিধ অসৎ কাজের ফিরিস্তি নিয়ে অনলাইনে ছাড়া প্রথম গেম নয়। ব্রাজিল সিনেট বা সংসদের সভাপতি জোসে সারনেই। গত বছরের জুলাই মাসে তার বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগে ওঠে। তিনিও অনলাইনে এই রকম মজার গেমের শিকার হন। তাকে নিয়ে এক গেম নির্মাণ করা হয়। এই গেমে তার মাথা লক্ষ্য করে কামানের গোলা ছোড়া হয়। সে খেলায় তিনি তার সহকর্মী সংসদদের দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে আছেন। এই গেমেও প্রচুর মজা রয়েছে। ওয়েবসাইট পারেসি পাইডা এই গেম তৈরি করেছে। এই গেমটি খেলার জন্য নিচে ক্লিক করুন:

derruuba

সারনেইকে নীচে ফেলে দিন! এখন আপনার পালা কংগ্রেসকে সাজিয়ে নেওয়ার!

গেম নির্মাণের এই ঐতিহ্য শুরু হয় ১৯৯০ এর দশকে। ১৯৯২ সালে ব্রাজিলের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ফার্নান্ডো কলোর ডে মেলোকে অভিসংশন করা হয়। তিনি ছিলেন এ ধরনের মজার প্রথম শিকার। ফুটেপোকার হিসেব মতে [পর্তুগীজ ভাষায়] কোলোর’কে নিয়ে তৈরি করা গেম হচ্ছে এ ধরনের প্রথম ভিডিও গেম:

O primeiro escândalo de corrupção a ganhar as telas de vídeogames e computadores foi o que envolvia o então presidente Fernando Collor de Mello. Com o nome “Roxo”, o objetivo do passatempo era acertar a figura de um caricato mandatário – com faixa presidencial a tira-colo – com um martelo. Ao garantir o sucesso da empreitada, o pequeno Collor no joguinho, seu membro ganhava a cor roxa e surgia um balãozinho com o dizer: “Ui!”. Tudo em alusão à declaração do próprio alvo da piada, ainda em campanha eleitoral, de que ele teria “aquilo roxo”.

প্রথম দুর্নীতির কেলেঙ্কারি নিয়ে যে কম্পিউটার গেম পর্দায় দেখা দেয় সেটি ছিল প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ফার্নান্ডো কোলোর ডে মেলোকে নিয়ে। এই গেমে যা অর্জন করতে হত, তার নাম ছিল পার্পেল বা রক্তবর্ণ। গেমটিতে রাষ্ট্রপতির পরিকর (আলখাল্লার বা কোটের উপরে পরা কাঁধ পর্যন্ত বিশেষ পোশাক) পরিহিত এক হাস্যকর চেহারার রাজনীতিবীদকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করতে হত। যদি সফল ভাবে আঘাত করা হত, তা হলে কোলোরের গোপনাঙ্গ রক্তবর্ণ ধারন করত । একই সাথে একটা বেলুনের মত উপাদানের ভেতরে এক আওয়াজ বের হত, এটি ছিল উ!… নামক শব্দ। এই গেমে পরোক্ষভাবে এক মন্তব্যের কথা উল্লেখ করা হয়, যা নির্বাচনী প্রচারণার সময় হাস্যরসের শিকার ব্যক্তিটি নিজেই করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন “তার [উক্ত গোপনাঙ্গ] রক্তবর্ণের” [এর মানে তিনি বীর, সাহসী, ভয়হীন এবং “সত্যিকারের” পুরুষ]
এইচটিটিপি://ডেসিক্লো.পিডিয়া.ওয়াস/উইকি

এইচটিটিপি://ডেসিক্লো.পিডিয়া.ওয়াস/উইকি

1 টি মন্তব্য

  • প্রতিদিনের আড্ডাব্লগ অনলাইন গেমস…

    I found your entry interesting thus I’ve added a Trackback to it on my weblog :)…

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .