বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিশর বনাম আলজেরিয়া: টুইটার ম্যাচ

বিশ্বের বেশীরভাগ জায়গায় ফুটবল খেলা ছাড়া কোন কিছু এত বেশী লোককে একত্র করেনা – বা কিছু ক্ষেত্রে, এর থেকে বেশী মেরুকেন্দ্রিক হয়না। আরব বিশ্ব আর এর বাইরে থেকে মিশর আর আলজেরিয়ার ভক্তরা এই শনিবারে (নভেম্বর ১৪, ২০০৯) তা প্রমাণ করেছেন যখন তাদের দল দক্ষিণ আফ্রিকার বিশ্ব কাপের স্থানের জন্য লড়ছিল। কায়রোতে উত্তেজনা সব থেকে বেশী হলেও, টুইটারসহ বিভিন্ন ভার্চুয়াল স্পেসেও লড়াই জীবন্ত ছিল, যেখানে অনেকে তাদের ভাবনা ফুটবলের অভিব্যক্তি দিয়ে জানিয়েছেন। টুইটার ব্যবহারকারী এম্বা তার স্ক্রিনের একটা স্থিরচিত্র পাঠিয়েছেন, যেখানে খেলার কথা ভরা ছিল:

মিশরী এম্বি একটা টুইট বার্তায় জানিয়েছে কিছু ভক্তের পাগলামির কথা:

আমার চেনা দুই লোক সুদানের টিকেট বুক করেছে খেলা দেখার জন্যে…খেলা পাগল..

কিছু রিপোর্ট দাবি করছে যে টিকিট সব বিক্রি হয়ে গেছে! একই সময়ে, মিশরী নোরা ইউনিস অবিশ্বাস প্রদর্শন করেছেন মিশরীদের মধ্যে ফুটবলের কারনে একত্র করার ক্ষমতা দেখে:

মিশরী নোহা আতিফের টুইট, অন্য দিকে, ফুটবলের ভালো দিক দেখিয়েছেন:

অনেক ক্ষেত্রে, ফুটবল খেলা জাতীয় শত্রুতার সূত্রপাত করেছে। মিশরী আর আলজেরীরা টুইটারে মুখোমুখি ছিল যখন খেলা চলছিল। মিশরের স্যান্ডমাঙ্কি লড়ছেন:

এটা সবাই জানে – আলজেরিয়ার খেলোয়াররা ভিতু।

আলজেরীয়-আমেরিকান দ্য মুর নেক্সট ডোর মজা করে বলেছেন:

সাদাতের দেশের লোকদের ভয়ভীতি নিয়ে কথা বলা মানায় না।

পরিশেষে, আলজেরিয় রিম্বা মনে করাচ্ছেন যে খেলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত এটি চলবে:

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .