বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ডেনমার্ক: পরিবেশ দেনার এজেন্টরা আসছেন

হাজার হাজার মানুষ এ বছর ডিসেম্বর মাসে কোপেনহেগেন যাচ্ছেন জাতিসংঘ জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনে যোগ দানের জন্য। তাদের মধ্যে যদি আপনি একজন হন, সম্ভাবনা আছে যে আপনি ডেনমার্ক, কেনিয়া, তাঞ্জানিয়া, উগান্ডা, জিম্বাবুয়ে আর জাম্বিয়া থেকে আগত একদল মানুষের মুখোমুখি হবেন যারা লাল পোষাক পরে থাকবেন।

তারা পরিবেশ দেনার এজেন্ট, আর তাদের কাজ হচ্ছে ডেনমার্কসহ শিল্পোন্নত দেশগুলো যাতে তাদের পরিবেশ সংক্রান্ত দেনা পরিশোধ করেন উন্নয়নশীল দেশকে সেটা দেখা। আপনি যদি ডেনমার্কে থাকেন, আর একটা পোষাক পরে তাদের সাথে যোগ দিতে চান, এখানে আবেদন করতে পারেন। তাদের ব্লগ বা ফেসবুকে আরও বিস্তারিত জানতে পারবেন।

মূল্য কে দেবে?

ধনী দেশ যখন এমন সিদ্ধান্ত নেয় যেটা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর, দারিদ্রে বাস করা মানুষজন সব থেকে বেশী মূল্য দিয়ে থাকেন। প্রযুক্তি দিয়ে অনেক স্থানের খরা, ক্ষুধা আর মৃত্যু রোধ করা যেত যেমন উন্নত পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা যা সবাইকে নতুন জলবায়ু পরিস্থিতির সাথে খাপ খাওয়াতে সাহায্য করে।

কিন্তু এর জন্য অর্থ প্রয়োজন।

আন্তর্জাতিক দারিদ্র বিরোধী সংস্থা একশন এইড এর এ সংক্রান্ত এক সংক্ষিপ্ত রিপোর্টের শিরোনাম হচ্ছে কে পরিবেশের দেনা শোধ করবে?। এই সংস্থা দেনার হিসাব করেছেন ১৩৫ বিলিয়ন ইউরো প্রতি বছর ২০২০ পর্যন্ত, আর প্রস্তাব করেছেন উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে এটা কিভাবে ভাগ করে দেয়া যায়।

গত ৩ মাসে, এম এস একশন এইড ডেনমার্ক অনলাইন আর অফলাইনের একদল কর্মীকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন তাদের বার্তা পৌঁছানোর জন্য। তাদেরকে গবেষণার জন্য কেনিয়া, ব্রাসেলস আর ডেনমার্কে পাঠিয়েছে আর তাদেরকে গ্লোবাল ভয়েসেস এর ব্লগারদের সাথে জুটি করে দিয়েছে যারা তাদেরকে ৬ সপ্তাহ ধরে ব্লগিং এর ব্যাপারে শিখিয়েছেন

তাদের ওয়েবসাইটে, দেনা এজেন্টে পরিণতরা জানিয়েছেন: “আমার পরিবেশের ন্যায় বিচার আর ন্যায় বিচারের বিশ্ব চাই। এটা পাওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণকারীদের মনোভাবের পরিবর্তন প্রয়োজন যাতে তারা বুঝতে পারেন আর তাদের জলবায়ু দেনা শোধ করেন।“

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .