বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

বিশ্ব স্বাস্থ্য: এইচ আই ভির টিকা বের হয়েছে?

প্রথমবারের মতো এইচআইভির পরীক্ষা মূলক একটা টিকা আবিষ্কার হয়েছে যা এই ভয়ঙ্কর ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে পারে। প্রচার মাধ্যমে এটি বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে এবং জনগণ আর এইচআইভি/এইডস রোগীদের মনে আশা জাগিয়েছে।

এই নতুন এইচআইভি টিকার বিশ্বের সর্ব বৃহৎ পরীক্ষামূলক প্রয়োগ থাইল্যান্ডে হয়েছে এবং তার ফল সেপ্টেম্বরের সপ্তাহে একটা প্রেস রিলিজের মাধ্যমে জানানো হয়। আগের দুটো এইচআইভি টিকার সমন্বয়ে তৈরি আরভি ১৪৪ নামে পরিচিত এই পরীক্ষা ১৬০০০ জন থাই স্বেচ্ছাসেবকের উপর এর কার্যকারিতা পরীক্ষা করে দেখে। দেখা গেছে যে এই ঔষধ কেবলমাত্র নিরাপদই না, এটি এইচআইভি সংক্রমণ রোধে শতকরা ৩১ ভাগ সফল হয়েছে। এই পরীক্ষা চালিয়েছে থাই জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আর আমেরিকার আর্মি সার্জন জেনারেল এর অর্থায়ন করেছে।

বিশ্বব্যাপী প্রত্যেক দিন প্রায় ৫,৫০০ মানুষ মারা যায় এইডসের কারনে আর ১৯৮০র দশকে সনাক্ত হওয়ার পরে এ পর্যন্ত প্রায় ৩ কোটি বিশ লাখ মানুষ মারা গেছে এই রোগে। পরীক্ষার ফলাফল মোটামুটি কার্যকরী বলা হচ্ছে আর এটি এই রোগ প্রতিরোধে একটা ছোট পদক্ষেপ যাতে ভবিষ্যৎে একটা নিরাপদ আর খুবই কার্যকর প্রতিষেধক পাওয়া যায়। এশিয়া হেলথ কেয়ার ব্লগের একটি পোস্ট এই সাবধানী আশাবাদ নিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন

“অনেক গণস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, এমনকি যারা এই প্রকল্পের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পৃক্ত, সাবধান থেকেছেন যাতে এই ফলাফল নিয়ে বেশী মাতামাতি না হয়, বিশেষ করে ভারতের মতো দেশে যেখানে এইচআইভি/এইডস মহামারীর রূপ নিয়েছে। কেউ কেউ এটাকে মূলে আঘাত বলেছেন উপরি চেষ্টা করার বদলে, আর সবাই বলছেন যে এই পরীক্ষা হয়ত সফল হয়েছে কিন্তু পূর্ণ ‘নিরাময়’ এখনও অনেক বছর দূরে। এমনকি বিশেষজ্ঞরা পুরোপুরি জানেন না যে এই টিকার প্রক্রিয়া কিভাবে কাজ করে।“

তারপরেও ইউএনএইডস এর মতো সংস্থা এই ফলাফলকে স্বাগত জানিয়েছে এবং বলছে যে এটা ২০ বছরের বেশী সময় ধরে অসফল টিকা উদ্ভাবনের প্রচেষ্টায় আশার উদ্রেক ঘটিয়েছে। অনেক ব্লগার, যেমন ব্রান্ডোন লেসি ক্যাম্পোস এই ফলাফলের সীমাবদ্ধতা জানলেও অনেক আশাবাদী। তিনি তার মাই ফিট অনলি ওয়াক ফরোয়ার্ড ব্লগে বলছেন:

“খুশির এই খবর ছড়িয়ে দেয়া যাক যে লাল ফিতার ডাইনীকে একদিন সত্যিই মারা যাবে!

যদিও এই পরীক্ষায় দেখা গেছে যে এই টিকা ছড়ানোর ভয়কে মাত্র শতকরা ৩১ ভাগ কমায় (যা আসলেই ০% এর থেকে অনেক ভালো)।

যদিও এই পরীক্ষা কেবলমাত্র থাইল্যান্ডে করা হয়েছে যেহেতু এশিয়াতে এইচআইভির প্রাদুর্ভাব সব থেকে বেশী।

যদিও আমেরিকার সেনাবাহিনী এই পরীক্ষার জন্য মূল আর্থিক সহায়তা দিয়েছে।

তারপরে ও আমি অভিভূত হয়ে গেছি এই সংবাদ শুনে।

এইচআইভি রোগ ছড়ানো রোধ করতে এর আগে কোন টিকা সফল প্রমাণিত হয় নি। কিন্তু থাইল্যান্ডের মেধাবী দুইজন ডাক্তার আগের অকার্যকর দুটি টিকা একত্র করে এই টিকা তৈরি করেছেন যা বেশ কয়েকজন রোগীর মধ্যে এইচআইভির সংক্রমণ পুরোপুরি প্রতিরোধ করেছে … আমার এই আনন্দ থেকে আমাকে বঞ্চিত করবেন না। আমি এই আনন্দের সীমাবদ্ধতা আর স্বল্পতা জানি, কিন্তু আশা থেকে বিশ্বাস আসে, আর বিশ্বাস বিশ্ব পাল্টাতে পারে আমরা যদি তা হতে দেই।“

সাওয়াতদি গে থাইল্যান্ড ব্লগের একটা পোস্টে মন্তব্য করতে গিয়ে বিচলাভার আশা ছাড়ছেন না যে টিকা পাওয়া যেতে পারে। তিনি বলেছেন:

“কার্যকরী টিকা পেতে হয়ত হয়তো অনেক দেরি। কিন্তু ক্রমে এটা হতে পারে… মাত্র ২০ বছর চেষ্টা করা হয়েছে আর অনেক টিকা তৈরি হয়েছে, যা অনেক দশক ধরে পরীক্ষার পরে হয়েছে।“

অন্যান্য ব্লগাররা এত আশান্বিত না, পরীক্ষার সম্ভাব্য ভুল ধরিয়ে দিয়ে এর ফলাফল আসলেই পরিসংখ্যানগত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ কিনা তা প্রশ্ন করেছেন। এই টিকা এইচআইভি নাই এমন প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষ আর নারীর উপরে পরীক্ষা করা হয়েছে, যাদের অর্ধেক এই টিকা পেয়েছেন আর বাকীরা অকার্যকর টিকা পেয়েছেন। তিন বছর ধরে ৮১৯৮ জন যারা এমনি টিকা পেয়েছিলেন তাদের মধ্য থেকে ৭৪ জন এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়েছেন আর যারা টিকা পেয়েছিলেন সেই ৮১৯৭ জনের মধ্যে ৫১ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এই পার্থক্য পরিসংখ্যানগত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনা করা হয়, কিন্তু ব্যাক ইন দ্যা ক্লজেটে ব্লগ করা ফিলিপাইন্স এর পিনয়পোজ থেকে এই ফলাফলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন:

“আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি, কিন্তু সত্যি, আমি সন্দেহ করেছি শুরুতে। আমি কখনো এইচআইভির কোন টিকার অগ্রগতির ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু পড়ি নি। আমার মনে হয়েছিল যে এটি খুব বেশী হঠাৎ করে সফল হয়েছে। আমি জানি আমার হতাশা আগে বেরিয়ে এসেছে। আমার আসলে নিজের চোখে সব পড়া দরকার ছিল…

…এই ‘টিকা’ নিয়ে প্রতি ১০০০ জনে ৬ জন সংক্রামিত হয়েছেন। কিন্তু ‘টিকা’ ছাড়াও সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা কম। ১০০০ জনে মাত্র ৯ জন। পার্থক্য? আমার জন্য, সামান্য।“

যুক্তরাজ্যের ব্লগ দ্যা লে সাইন্টিস্টে মার্টিন বেশ সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন:

“ আমরা একটা ফলাফল পেয়েছি যেটা প্রায় পরিসংখ্যানগত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ না, দুটো টিকার সমন্বয়ে ব্যবহার করা একটি টিকা যা আগে কাজ করেনি, একটা প্রক্রিয়া যা একটি সম্মিলিত চিঠিতে বিশেষজ্ঞদের দল জোরালো ভাবে সমালোচনা করেছেন, আর ফলাফলের যে দোষ পাওয়া গেছে যা টিকা কাজ না করা বোঝাতেও পারে।

আমি গলা বাড়িয়ে বলব না যে এই পরীক্ষা ব্যর্থ হয়েছে, কিন্তু কোন আত্মসম্মান বোধ সম্পন্ন সমালোচক এই ফলাফল দেখে এটাকে মৃদু ভাবে কার্যকরী ছাড়া আর কিছু বলতে পারবেন না।“

কিছু ব্লগার মনে করেন যে পরীক্ষার ফলাফল আনন্দ করার বা না করার কারণ হলেও, মানুষ এটাকে ব্যবহার করতে পারে নিরাপদ যৌন সম্পর্ক সম্পর্কে সাবধান না হবার কারণ হিসেবে। মালয়েশিয়া থেকে ইন মাই ফাদার্স ফুটস্টেপে ব্লগ করা জিম্বো বলেছেন:

“আমরা ‘ফিরে আসা’ প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিতে পারি না, যেখানে মানুষ মিথ্যা নিরাপত্তার চিন্তায় অভিভূত হন আর সাবধান হওয়া বন্ধ করে দেন, যেমন এইচআইভি/এইডসের প্রথম দিকে যখন গে ছেলেরা অসাবধান যৌন সম্পর্কে ফিরে গেলেন যখন এজেটটি, প্রথম এইচআইভি প্রতিরোধক ঔষধ বাজারে এসেছিল আর পাওয়া যাচ্ছিল। তারা মনে করেছিলেন এইচআইভির চিকিৎসা তো এসেছে, ভয় কি! আসলে জিম্বো ভাবছেন যে এটা বোকার মতো চিন্তা হবে যে এমন ‘ফিরে আসা’ প্রতিক্রিয়া আবার ঘটবে কি না।“

অন্যান্য ব্লগাররা আশা করেন যে পরীক্ষা নিয়ে আর টিকার আসল ক্ষমতা নিয়ে আরো প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে যখন এই পরীক্ষার বিস্তারিত তথ্য এইডস টিকার কনফারেন্স ২০০৯ এ উপস্থাপিত হবে। এই কনফারেন্স ১৯-২২শে অক্টোবর ফ্রান্সের প্যারিসে অনুষ্ঠিত হবে।

ইন্জেকশনের সুইয়ের ছবি, ফ্লিকার ব্যবহারকারী স্টিভেনডিপোলোর সৌজন্যে, ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের আওতায় ব্যবহৃত।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .