বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ফিলিপাইন্স: নাগরিকদের ভিডিওতে বন্যার চিত্র ধারণ

টুইপিক ব্যবহারকারী রিয়াহগুয়েভারার সৌজন্যে

টুইপিক ব্যবহারকারী রিয়াহগুয়েভারার সৌজন্যে

ম্যানিলা পৌর এলাকার বেশ কিছু অংশ এখনও (২৮শে সেপ্টেম্বর) পানিতে তলিয়ে আছে যদিও মৌসুমি ঝড় অন্ডয় (আন্তর্জাতিক নাম কেটসানা) তার তাণ্ডবলীলা বইয়ে অনেক আগেই চলে গেছে। গত শনিবার (২৬শে সেপ্টেম্বর) রাজধানীতে এই ঝড় আঘাত করার পর প্রায় ২০০ জন লোক মারা গেছে এবং লক্ষাধিক লোক গৃহহীন হয়েছে।

ঝড়ের সাথে ব্যাপক বৃষ্টিপাত এই দেশে স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার সৃষ্টি করেছে। এই ঝড়ের সাথে হারিকেন ক্যাটরিনার চেয়েও বেশী বৃষ্টিপাত হয়েছে

রিটুইট @উইজকিটাবেট: তথ্য: হারিকেন ক্যাটরিনার সময় লুইজিয়ানায় বৃষ্টিপাত হয়েছে ৩৮০ মিমি। টাইফুন অন্ডয়ের সময় ৪১০ মিমি বুষ্টিপাত হয়েছে ম্যানিলায়।

বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া সাইট পূর্ণ উদ্যমে কাজ করে গেছে উদ্ধারকর্মীদের বন্যা দুর্গতদের অবস্থান জানানোর জন্যে। টাইফুন অন্ডয় সিচুয়েশন ম্যাপ তৈরি করা হয়েছে দুর্গতদের কি সাহায্য দরকার তা চিন্হিত করতে। গুগল একটি বিশেষ পাতা খুলেছে ত্রাণ ও দান সমন্বয় করার জন্যে। অন্ডয় রিলিফ এফোর্টস প্রকাশ করেছে রিলিফ এজেন্সীগুলোর নাম ঠিকানা, ত্রাণ জমা দেওয়ার স্থান, এবং সরকারী উদ্ধার দলের বিভিন্ন তথ্য।

ছবি তুলেছে আলী ফিগুয়েরোয়া

ছবি তুলেছে আলী ফিগুয়েরোয়া

সাইবার জগৎে বিভিন্ন নাগরিক ভিডিও তুলে দেওয়া হয়েছে যাতে দৃশ্যমান হচ্ছে বন্যা কি পরিমাণ ক্ষতি ডেকে এনেছে এই জনগোষ্ঠীর উপর। নীচে ইউটিউব ব্যবহারকারী ডিডিপাসরেক্স এর সেরকম একটি ভিডিও।

আমার মা টাইফুন অন্ডয়ের দ্বারা সৃষ্ট বন্যার এই ভিডিওটি তুলতে সমর্থ হয় কিছু সময়ের জন্যে এবং অচিরেই তাদের দোতালায় চলে যেতে হয় পানি থেকে রক্ষা পেতে। দোতালায়ও তারা বুক সমান পানিতে ভেসে ছিলেন পরের দিন সকালে পানি নেমে যাওয়া পর্যন্ত।

নীচের ভিডিও দেখাচ্ছে একজন গাড়ীর আরোহী কিভাবে গাড়ীতে আটকে রয়েছেন যখন ম্যানিলার এক হাসপাতালের সামনে বন্যার পানি হু হু করে বাড়ছিল।

ম্যানিলার পূর্বে মারিকিনা সিটি এই বন্যার দ্বারা ভয়ানক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ম্যানিলার দক্ষিণে পারানাক শহরে পথচারী এমনকি মটর সাইকেল চালকরাও বন্যা আক্রান্ত রাস্তা পার হতে ফোমের সাহায্য নিয়েছে:

বন্যার পানির তোড়ে গাড়ী ভেসে গিয়েছে।

ম্যানিলার উত্তরে বুলাকান প্রদেশও ঝড়ে প্রচন্ড বিপর্যস্ত হয়েছে।

টেকপিনাস একটি রেডিও স্টেশনের অনুষ্ঠানের প্রশংসা করেছে যা তার শ্রোতাদেরকে ক্রমাগত বন্যার তাজা খবর দিয়েছে। এর শ্রোতার মধ্যে অনেকেই ছিলেন বন্যাদুর্গত যারা মোবাইল ফোনের রেডিওর মাধ্যমে উদ্ধার কার্যের খবর শুনেছেন:

টাইফুন অন্ডয় এর ফলে সৃষ্ট দুর্ভোগ এবং অনিশ্চয়তার মধ্যে ম্যানিলার বিভিন্ন অন্চলে বিদ্যুৎ ছিল না। এর মধ্যেই ডিজে গ্যাঙ্গ, ডিজে ল্যাম্বার্ট, এবং ডিজে স্টেফ তাদের সর্বোত্তম প্রচেষ্টা চালিয়েছে দুর্যোগ মোকাবেলা ও উদ্ধার কার্যের বিভিন্ন সংবাদ ও তথ্য প্রচার করতে যাতে দুর্গত এলাকায় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বন্যা দুর্গতরা তা শুনতে পারে। চার্জ কমে আসা মোবাইল ফোন কানে দিয়ে এরা জ্যাম ৮৮.৩ স্টেশনকেই তাদের শেষ আশা বলে ধরে নিয়েছিল। এই স্টেশনটি তাদের গতানুগতিক এফ এম অনুষ্ঠান বাদ দিয়ে উদ্ধার ও ত্রাণকার্য সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য ও স্বেচ্ছাসেবী সমন্বয়ের এক তথ্যকেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল।

এসএমএস এর মাধ্যমেও বন্যাদুর্গতদের মাঝে সংবাদ পাঠানো হয়েছিল যে কিভাবে বন্যা থেকে বাঁচা যাবে:

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ছিল যে জ্যাম রেডিওর এই উদ্যোগে জনসাধারণের স্বত:স্ফুর্ত অংশগ্রহণ। অনেকে রেডিও স্টেশনে ফোন করে জানিয়েছেন শহরে ট্রাফিক জ্যামের অবস্থা। বন্যাদুর্গতরা যারা বাড়ীর ছাদে অবস্থান নিয়েছিল পানি থেকে বাঁচার জন্যে তাদের হাইপোথার্মিয়া থেকে রক্ষার জন্যে কি করতে হবে তা জানিয়েছে ডাক্তাররা এসএমএস এর মাধ্যমে। একজন প্রাক্তন রেডক্রস ভলান্টিয়ার শ্রোতাদের বলেছেন কি করে খাবার স্যালাইন তৈরি করতে হয়।

ছবি তুলেছেন সেলিয়া অ্যানা নাটানাউয়ান চান

ছবি তুলেছেন সেলিয়া অ্যানা নাটানাউয়ান চান

দুর্যোগের তথ্য প্রচার এবং উদ্ধার কার্য সমন্বয়ের জন্যে টুইটার একটি কার্যকরী টুল। টুইটারের মাধ্যমে নেট নাগরিকরা দুর্গম স্থানে বন্যার সর্বশেষ খবর জানাতে পেরেছে:

এইজঅফব্রিলিগ: আমাদের এক সহকর্মী পায়াতাস এ গিয়েছিল। ওখানকার অবস্থা প্রচার মাধ্যমে আসে নি। কোন রিলিফও পৌঁছে নি।

ককই: আমি কান্ডাবার পরিস্থিতি জানি। সমস্ত শহর পানির নীচে, শুধু গীর্জা ছাড়া। আমি শহর ছাড়তে পারছিনা।

জভফ্রান্সিসকো: শনিবার পর্যন্ত আমি মনে করেছিলাম আমার এলাকাই সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত। তবে আমি টিভিতে ছবি দেখে বুঝলাম তা সত্যি নয়।

টুইটার বার্তা উদ্ধার দল এবং পুলিশকে তথ্য দিয়েছে কোথায় ত্রাণ সরবরাহ করতে হবে:

আলেক্সডেরোসী: রোজারিও পাসিজ এবং কাভিট এলাকা এখনও কোন ত্রাণ পায় নি। আপনারা যদি পারেন, কিছু করেন।

মাক্সেনেমাগালোনা: মারিকিনা গ্রামে পুলিশ দরকার। সেখানে ডাকাতরা বন্যাগ্রস্তদের খালি বাড়িতে চড়াও হবার জন্যে ওৎ পেতে রয়েছে।

টুইট বার্তা উদ্ধারকার্য সম্পর্কে সর্বশেষ অবস্থা জানিয়েছে জনগণকে:

অ্যান্ড্রিউডিক্যাস্ট্রো: কিভাবে (ত্রাণসামগ্রী হিসেবে প্রদত্ত) ইন্সট্যান্ট নুডলস মানুষ রান্না করে খাবে? অথবা টিনগুলোই খুলবে কিভাবে? আমার জানতে ইচ্ছে করছে।

ফিলরেডক্রস: আমরা আমাদের ত্রাণ বিতরণ কার্যে যুবকদের সহায়তায় অভিভুত। আগ্রহী স্বেচ্ছাসেবকরা পিএনআরসি হেডকোয়ার্টার (আন্ডা সার্কেলের কাছে) এ যেতে পারেন।

ককই : @ডেমেন্টিয়া: হ্যা দয়া করে এখুনি খাবার উপযুক্ত খাদ্য ও পানি দান করো। নুডলস রান্না করার কোন উপায় নেই বন্যাদুর্গতদের।

রাজ্যের এক সিনেটরের এই টুইটার বার্তা বোঝাবে যে বন্যা ধনী গরীব উভয়কেই আক্রান্ত করেছে:

সে চিজ: আমার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা সিন্কো হারমানোজ এ বাস করে। তাদের ছাদটুকু শুধু পানির উপরে ছিল। তারা তাদের প্রতিবেশীর দোতালা বাড়ীতে আশ্রয় নিয়েছে।

ছবি তুলেছে ডায়ান লরেনজানা

ছবি তুলেছে ডায়ান লরেনজানা

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .