বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মালয়েশিয়া: ম্যাকডোনাল্ডস বনাম ম্যাক কারি

মালয়েশিয়ার ফেডারেল আদালত সম্প্রতি এক রায় দিয়েছে যে কুয়ালালাম্পুরের স্থানীয় ভারতীয় জনপ্রিয় রেস্টুরেন্ট ম্যাক কারি আন্তর্জাতিক ফুড চেইন ম্যাকডোনাল্ডসের ট্রেডমার্ক নামের অপব্যবহার করেনি।

ম্যাক কারি ১৯৯৯ সালে খোলা হয়েছিল এবং ম্যাকডোনাল্ডস তার বিরুদ্ধে ২০০১ সালে একবার মামলা করেছিল। ম্যাক কারির মালিকের কথা অনুসারে, রেস্টুরেন্টের নামের আগের ‘ম্যাক’ মালয়েশিয়ার চিকেন কারির জন্য ব্যবহৃত হয়।

এই ঐতিহাসিক আদালতের রায়ের ব্যাপারে কিছু ব্লগারের প্রতিক্রিয়া এখানে তুলে ধরা হল:

এজ সুয়ানি সিজ ইট ব্লগ বিশ্বাস করে যে সেয়ানে সেয়ানে লড়াইতে কিছু সেয়ানা কেবলমাত্র সুযোগসন্ধানী হয়ে থাকে:

আমি অন্য যে কোন ডেভিডের মতো, গোলিয়াথের উপরে ভালো বিজয় আমি পছন্দ করি (গ্রীক উপকথার রুপক)। কিন্তু মাঝে মাঝে আমার মনে হয় যে কিছু ডেভিডরা সুযোগসন্ধানী, আর মুখোমুখি হলে তারা তর্ক করবে যে গোলিয়াথরা বড় আন্তর্জাতিক কর্পোরেশন আর তাদের বেহিসাবী অর্থ আছে, আর তাই তাদেরকে ঘোরাতে পারে। অবশ্যই অনেক গোলিয়াথ আছেন যারা এমন করে আর তাদের থামানো উচিত, কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে ডেভিডরা কোন ভালো কিছু না। যখন ম্যাকডোনাল্ড বনাম ম্যাককারির কথা ওঠে আমার মনে হয় এটা সে রকমই।

একটি পোস্টে মন্তব্য করতে গিয়ে, মেলিসা বিশ্বাস করেন যে অনেকেই জানে যে ম্যাক কারি ম্যাকডোনাল্ডস থেকে আলাদা:

অবশ্য তারা পুরোপুরি ম্যাকডোনাল্ডসের ঢেউ এ যাচ্ছেন, কিন্তু তারা যে খাদ্য দিয়ে থাকে তা একেবারেই আলাদা আর আমি ঠিক জানি না কত মানুষ জানে তারা কতটা আলাদা আর একজনের সাথে আর একজনকে মেলায় না, আমার মনে হয় না এতে কোন সমস্যা আছে।

আইরিস ভাবছেন ম্যাকডোনাল্ডস তবে কেন আর একটা স্থানীয় ম্যাক রেস্টুরেন্টের বিরুদ্ধে কেন মামলা ঠোকে নি:

জেলাটেক অঞ্চলে আর একটা রেস্টুরেন্ট আছে ম্যাক কান্ডার নামে… কিন্তু যেহেতু এটা ম্যাক কারির মতো জনপ্রিয় না, আমার মনে হয় তাই ম্যাকডোনাল্ডস তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে নি। তার মানে কি ম্যাকডোনাল্ডস কেবলমাত্র তাদের কাছাকাছি শাখা গুলোর চেয়ে থেকে ‘ম্যাক’ নাম সহ যেসব কোম্পানি ভালো করে কেবল তাদের বিরুদ্ধেই মামলা করে? হুমমম..

এনোনিমাস এক্স ম্যাক কারিকে যুক্তরাষ্ট্র আর যুক্তরাজ্যে শাখা খোলার পরামর্শ দিয়েছে:

‘ম্যাক কারির’ আসলেই যুক্তরাষ্ট্র আর যুক্তরাজ্যে তাদের শাখা খোলার ব্যাপারে চিন্তা করা উচিত। অনেকেই এমন হৃদয় নিংড়ানো গল্প পড়তে ভালবাসেন যেখানে একটা বিশাল বহুজাতিক কোম্পানি একেবারেই নির্লজ্জ হয়ে গেছে একটা স্থানীয় ব্যবসায়ের প্রতি এত খুঁতখুতে হয়ে যারা কেবলমাত্র ‘ম্যাক’টা তাদের নামের সাথে যুক্ত করতে চায়।

এটা একটা কেবলমাত্র শুধু একটি নামের সংযুক্তি, আল্লাহর দোহাই!

কার্ল পারকেস ভয় পাচ্ছেন যে ম্যাক কারির মত রেস্টুরেন্ট এশিয়ার অন্যান্য দেশেও খোলা হবে:

বোকার মতো জিনিষ, কিন্তু ম্যাকডোনাল্ডস তাদের নাম যদি বিশ্বব্যাপী রক্ষা না করে, আমরা অচিরেই বালিতে ম্যাক সাতে, ম্যানিলাতে ম্যাক ইয়াদোবো আর ব্যাঙ্ককে ম্যাক সোমটাম দেখতে পাবো।

দ্যা ব্লুজম্যান প্রশ্ন করেছে যে ম্যাক কারির বিজয় অন্যান্য স্থানীয় রেস্টুরেন্ট কে অনুপ্রাণিত করবে কিনা:

আরো দোকান কি চাইবে ‘ম্যাক’ নামটি সংযুক্ত করতে এখন এটা আর যখন ম্যাকডোনাল্ডসের একার সম্পত্তি না। আমার প্রিয় সিয়ামিজ রেস্টুরেন্ট মেক হাবসা টমইয়াম হয়তো তাদের নাম পালটিয়ে ম্যাক হাবসাহ টমইয়াম রাখতে চাইবে তাদের আন্তর্জাতিক পরিচিতি বা গ্রহণ যোগ্যতা দেয়ার জন্য। অথবা আমাদের স্থানীয় খাদ্য তালিকায় আমরা এখন থেকে ‘ম্যাক’ সংক্রান্ত কিছু নাম দেখতে পারি যেমন ম্যাক নাসিলেমাক, ম্যাক সাতে, ম্যাক রোটিচানাই, ম্যাক ফ্রাইওকোয়েতিয়াউ, ম্যাক চিকেনরাইস আর তাই ম্যাকডোনাল্ডসের সামনে বিশাল চ্যালেঞ্জ।

এই লেখক বলেছেন যে গ্রাহকরা সিদ্ধান্ত নেবেন যে ম্যাক কারি বা তার অনুরুপরা বাজারে টিকতে পারবে কিনা:

কিন্তু ব্যবসা এখনো ব্যবসা, যার মানে পরিশেষে আমাদের মতো মানুষ, মানে গ্রাহকরা সিদ্ধান্ত নেবেন কোন ব্যবসার জিনিষ বাজারে টিকবে কিনা।

মাই জার্নাল বোঝাতে চেয়েছে কেন ম্যাকডোনাল্ডস ম্যাক কারির বিরুদ্ধে তাদের প্রতিবাদে একরোখা ছিল:

আমার মনে হয় এই ব্যাপারে ম্যাকডোনাল্ডস একরোখা হয়ে আছে কারণ তারা একদিন তাদের নিজেদের ম্যাক কারি বের করবে। যেহেতু তারা এই যুদ্ধে হেরে গেল, তাদের পণ্যের অন্য নাম তাদেরকে দিতে হবে, যেমন ‘ম্যাকডোনাল্ডস কারি’।

আদালতে রায় শোনার পরে মালয়েশিয়ান লাইফ বলেছেন:

বাহ, আমার বিশ্বাস হচ্ছে না, কিন্তু এটা সত্যি। আমার মনে হচ্ছে আন্তর্জাতিক একটা কোম্পানিকে আইনী লড়াই এ হারানো সম্ভব।

মালয়েশিয়া থেকে টুইটারে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া:

ড্যানিফু: ম্যাকডোনাল্ডস কি বুঝতে পেরেছে যে তাদের মামলা ম্যাক কারিকে বিনামূল্যে প্রচার আর বিশাল পরিচিতি এনে দেবে?

হাসুদিন: নিজের অধিকার সংরক্ষণের সময়ে, আশা ছাড়বেন না!

ওবেল১: নতুন আন্তর্জাতিক খাদ্যের ঠিকানা: ম্যাক কারি

আই অ্যাম মালয়েশিয়ান: ঠিক আছে। ম্যাকডোনাল্ডস মালয়েশিয়ার ম্যাক কারির কাছে আইনি যুদ্ধে হেরে গেল। কিন্তু কে পরোয়া করে? অনেক হয়েছে এরই মধ্যে!

দাভিনারুল: ম্যাকডোনাল্ডস ম্যাক কারির বিরুদ্ধে আবার মামলা করতে পারে তারা যদি বন্য শুকর বিক্রি করে, কারন কাত্তু পান্ডি কোয়ার্টার পাউন্ডারের মতো শোনায়

দাভিনারুল: এর ফলে ম্যাককারি কি ডিমের ম্যাক থোসিয়া, সারদিন ম্যাকছানাই (পনির দিয়ে), মোরু শেক আর তাইরু টুইস্ট পরিবেশন করতে পারবে?

আল্টিমেট: আমি কিছু ম্যাক কারির জন্য যাচ্ছি!

জিকু: জঘন্য ক্লাউন! এখন কোনভাবে কোন সুস্থ্য মালয়েশিয়ান ম্যাক কারিকে ম্যাকডোনাল্ডসের সাথে মেলাতে পারবে না। আমি ম্যাক জানিনা। হাসি!

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .