বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পাকিস্তান: রিয়েলিটি শোতে মৃত্যু

পাকিস্তানী এক রিয়েলিটি শো অনুষ্ঠানে (এক ধরনের টিভি অনুষ্ঠান যেখানে অংশগ্রহণ কারীদের অদ্ভুত ও কঠিন সব কাজ করতে হয়) একজনের মৃত্যু পাকিস্তানের ব্লগস্ফিয়ারে এক তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি করেছে। এই অনুষ্ঠানে সাদ খান নামের এক অংশগ্রহণকারী এক ঝুঁকি পূর্ণ খেলায় অংশ নিয়েছিল যার শুটিং ব্যাংককে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সাঁতার কেটে এক হ্রদ পার হওয়া ছিল এই খেলার অংশ এবং সাঁতার কাটার সময় কাঁধে ৭ কিলোগ্রাম ওজন ব্যক্তিটিকে বহন করতে হচ্ছিল। প্রত্যক্ষদর্শীর বিবরণ অনুসারে, এই ওজন নিয়ে সাঁতার কাটতে খানের অসুবিধা হচ্ছিল এবং পানিতে ডুবে যাবার আগে সে সাহায্যের জন্য চিৎকার করছিল।

খানের এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও সহকর্মী টুইটারে প্রথম এই সংবাদ জানান, যা ক্রমশ: অনেক সোশাল নেটওয়ার্কে প্রতিক্রিয়ার ঢেউ সৃষ্টি করে। খানের বন্ধু ফারুক তার এই টুইটার বার্তায় সকল ব্লগারদের এক হতে বলেন, যে দুর্ঘটনায় এই তরুণ ব্যক্তির প্রাণ চলে গেল, তার ব্যাখ্যা দিতে অনুষ্ঠানের আয়োজক প্রতিষ্ঠান যেন বাধ্য হয়।

@ফারুক আহমেদ: সকল ব্লগারদের প্রতি: ইউনিলিভার নামক প্রতিষ্ঠান আয়োজিত এক বিপজ্জনক ক্রীড়া অনুষ্ঠান যা আমাদের এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর জীবন কেড়ে নিয়েছে তার বিরুদ্ধে আওয়াজ তোলার জন্য আপনাদের সাহায্য প্রয়োজন। এই অনুষ্ঠানের বিস্তারিত বর্ণনা/ ভিডিও দৃশ্য সরবরাহ করতে ইউনিলিভার অস্বীকার করেছে।

পরবর্তীতে ফারুকের ব্লগ এই ঘটনার পুরোটাই উন্মোচন করেছে:

আমার নিজস্ব অবস্থান থেকে বলতে পারি, বহুজাতিক এক কোম্পানী যারা এই অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিল, তারা সাদের মৃত্যুকে এক রহস্যের ঘেরাটোপে বন্দি করে রাখতে চায়। পরিহাস করে বলা যায়, এই ঘটনাটি আন্তর্জাতিক ব্লগ ও সোশ্যাল নেটওয়ার্কে ছড়িয়ে পড়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে, (…) এই পোস্টের মাধ্যমে, আমি এ বিষয়ে সরাসরি কিছু তথ্য প্রদান করতে চাই এবং জনতার কাছে কিছু প্রশ্ন রাখতে চাই, এই কারণে যে সাদের মৃত্যুর ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ জানার পর এইসব বিষয় অবশ্যই আপনাদের মনে আসতে পারে।

এই ঘটনাটি সঠিক ভাবে না উপস্থাপন করার জন্য, পাকস্যাটায়ার পাকিস্তানী মূল ধারার প্রচার মাধ্যমের কৌতুককর সমালোচনা করেছে। এখানে বার্তাটি ছিল এ রকম যে, মূল ধারার সংবাদপত্রগুলো কর্পোরেট বা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের প্রচণ্ড এক অবৈধ চাপের মুখে ছিল।

বিদ্রূপাত্মক ব্যাঙ্গচিত্র- খানের মৃত্যুর বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ সংবাদ প্রকাশ না করায়, সমালোচনা করে এগুলো তৈরি করা হয়েছে।

বিদ্রূপাত্মক ব্যাঙ্গচিত্র- খানের মৃত্যুর বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ সংবাদ প্রকাশ না করায়, সমালোচনা করে এগুলো তৈরি করা হয়েছে।

ইতিমধ্যে অবশ্য মূল ধারার প্রচার মাধ্যমগুলোতে সাদের মৃত্যুর খবর ধীরে ধীরে প্রকাশিত হচ্ছে। ডন পত্রিকা এই মৃত্যুর খবর প্রকাশ করেছে এবং তার সাথে ইউনিলিভারের এক ব্যাখ্যা জুড়ে দিয়েছে। ইউনিলিভার সাদের এই মৃত্যুর কোন দায়দায়িত্ব নিচ্ছে না। অল থিংকস পাকিস্তান সাবিন মাহমুদ এই সমস্ত অতিকায় কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানে তার কাজ করার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা আমাদের জানাচ্ছেন।

সেখানে অনেক ভালো মানুষ রয়েছে এবং সেখানকার সকল বিভাগের কাজকর্ম দেখার সৌভাগ্য হয়েছে, বিশেষ করে ভেতরের সব কাজ(…)। কর্পোরেট বা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান হচ্ছে এমন এক যন্ত্র, যার কোন আত্মা নেই। তার একমাত্র লক্ষ্য কেবল মুনাফা অর্জন, দৃশ্যমান তার বক্তব্য, নৈতিক নীতি মালা এবং কর্পোরেট সামাজিক দায়িত্বের জন্য যে সমস্ত কর্ম সূচি হাতে নেওয়া হয়, তা কোম্পানীর প্রায় এক বৈধতা অর্জনের প্রচেষ্টা, যার সাথে এইসব কোম্পানীর ব্যবসায়ীক বাস্তবতার কোন মিল নেই।

এরপর সাবিন দায়িত্বের ব্যাপারটি ব্যাখ্যা করেন এবং এই বিষয়ে সবার সামনে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করার দাবি জানান।

এই বিষয়ে ভদ্রমহিলা বলেন, এই ব্যাপারে আমি একমত, যে অনুষ্ঠানে সাদ খানের মৃত্যু হয়েছে তা সম্পূর্ণ এক নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে অনুষ্ঠিত হচ্ছিল এবং এই মৃত্যু এড়ানো যেত। এখানে পুরো ব্যাপারটায় আমি অবহেলার এক গন্ধ পাচ্ছি।

টিথ মায়েস্ত্রো ব্লগের ড: আওয়াব আলভি এই দুর্ঘটনার উপর ধারাবাহিক কয়েকটি লেখা পোস্ট করেছেন, সংগঠকদের তরফ থেকে ধারণাতীত অবহেলার বিষয়ে তিনি লিখেছেন। তার এক সাম্প্রতিক পোস্টে তিনি উক্ত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী এক ব্যক্তির সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছেন। উক্ত ব্যক্তি দাবী করেছে যে, এই দুর্ঘটনা এড়ানো যেত এবং সংগঠকদের অবহেলাই এই দুর্ঘটনার কারণ।

ম্যাক্স রবিনসন সারা বিশ্বের সকল রিয়েলিটি টিভি শো বা বাস্তবে জটিল সব খেলায় অংশগ্রহণ করা টিভি অনুষ্ঠানের একটা তুলনা করেছেন। তিনি গুরুত্ব প্রদান করেন, টিভির এই অনুষ্ঠানের প্রযোজককে এর দায়ভার নিতে হবে, কারণ বিশেষ ঝুঁকিপূর্ণ দৃশ্যে যে সমস্ত বিপদ রয়েছে সে সম্বন্ধে অংশগ্রহণকারীদের তারই তথ্য প্রদান করার কথা।

খানের মৃত্যুদৃশ্যকে ঘিরে এক রহস্য তৈরি হয়েছে। যখন নানা ধরনের অনুমান তৈরি হচ্ছে তখন কোন প্রমাণ ছাড়া এ বিষয়ে কোন সুনির্দিষ্ট কোন কিছু বলা যাচ্ছে না। আমার নিজস্ব ব্লগে আমি বিভিন্ন রিয়েলিটি শো অনুষ্ঠানের ব্যাপারে চিন্তা ব্যক্ত করেছিলাম। পাকিস্তানে প্রায়শই এই ধরনের অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়।

এই দুর্ঘটনা পাকিস্তানের সকল অস্বাভাবিক রিয়েলিটি শো অনুষ্ঠানের একটি দিক উন্মোচন করে দিল, যেখানে নিরাপত্তার বিষয়টি কখনই বিবেচনা করা হয় না […]। এখন এই সমস্ত বিনোদন মূলক অনুষ্ঠানের গ্রহণ যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে- যারা নিরাপত্তার বিষয়ে মোটেও সচেতন নয়- এই সব অনুষ্ঠানকে কি আমরা বিনোদন আর বাণিজ্যের নামে প্রচারিত হতে দিতেই থাকব।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .