বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

আ্যান্গোলা: জাতীয় বিমান পরিবহণ সংস্থার নাম ইইউ এর কালো তালিকা থেকে বাদ

Photo by kaysha, published under a Creative Commons licenseAfter

Photo by kaysha, published under a Creative Commons licenseAfter


দুই বছর পর প্রথম টিএএজি (অ্যান্গোলার জাতীয় বিমান সংস্থা) বিমানের ইউরোপ যাত্রা শুরু হয়েছে। গত পহেলা আগস্ট ২০০৯ বোয়িং ৭৭৭-২০০ইআর বিমানটি লুয়ান্ডা থেকে লিসবনে গিয়েছে। আ্যান্গোলা এয়ারলাইন্স ইউরোপে আবার তার যাত্রা শুরু করেছে। কারণ ইউরোপীয় কমিশন এই বিমান সংস্থা থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা এই আশায় এই কাজটি করেছে যে এতে পরিবহন সংস্থাটির আরো উন্নত অর্থনৈতিক অবস্থার সৃষ্টি হবে। অ্যান্গোলার জাতীয় বিমান বর্তমানে কেবল পর্তুগালেই যাতায়াত করতে পারে। এর জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা এয়ারলাইন্সের সাথে অংশীদারি সম্পর্ককে ধন্যবাদ।

ইউরোপীয় কমিশনের ঘোষণা অনুসারে টিএএজি বিমান যাত্রা শুরু করতে পারে, কিন্তু “কেবল তা কয়েকটি বিশেষ কোম্পানীর বিমান নিয়ে এবং কয়েকটি কঠিন শর্ত সাপেক্ষে”। যার মানে অ্যান্গোলার জাতীয় বিমান সংস্থা এখনো ইউরোপের অন্য দেশে ওড়ার জন্য সবুজ সংকেত পায় নি, যেমন ফ্রান্সে।

ইউরোপীয়ান ট্রান্সপোর্ট কমিশনার এন্তোনিও তাজানির সিদ্ধান্ত অনুসারে টিএএজি এখনো ইইউ এর কালো তালিকা ভুক্ত। কিন্তু ইউরোপীয়ান কমিশন “চিহ্নিত করেছে, আ্যান্গোলার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ উন্নতি করছে এবং যা টিএএজি ধারাবাহিক ভাবে এবং নিরাপদ উপায়ে তাদের বিমান উড্ডয়ন সমস্যা সমাধান করেছে”।

২০০৭ সালে, বিমান পরিচালনায় নিরাপত্তার অভাবের কারনে টিএএজিকে ইউরোপীয়ান বিমান উড্ডয়ন সংস্থা কালো তালিকা ভুক্ত করে। তার আগে টিএএজির বিমান সপ্তাহে ছয়বার লূয়ান্ডা ও লিসবনের মধ্যে যাতায়াত করত এবং সপ্তাহে একবার প্যারিস যাওয়া আসা করত।

পলুলু ব্লগের ইউজেনিও কস্টা আলমেইদা এই বিষয়ে তার দৃষ্টিভঙ্গি জানাচ্ছেন:

“Finalmente a TAAG volta, cerca de dois anos depois, a poder voar em céus europeus, ainda que à condição. De acordo com o boletim da União Europeia, hoje divulgado, e depois de constatar que a Comissão “reconhece” o “progresso” realizado pela aviação civil angolana e pela TAAG para “resolver progressivamente quaisquer deficiências de segurança”, retirou a companhia da Palanca Negra da lista negra e permite, durante um período – que será de observação no desenvolvimento das medidas implementadas – voar para um dos países europeus. O destino aprovado foi Lisboa, pelo que a TAAG irá fazer cerca de 10 voos semanais entre Luanda e a capital portuguesa. Todavia, as restantes companhias de bandeira ou registadas em Angola continuam interditas de voarem para a Europa. Também as aeronaves tipo Boieng B-777, com as matrículas D2-TED, D2-TEE e D2-TEF, parecem estar impedidas de voar nos céus europeus. A não ser que haja alguma razão válida parece-me que continua a haver aqui uma “certa imposição” comunitária em compra de aviões da Airbus. Mas depois dos últimos acidentes com esta companhia…”

অবশেষে, দুই বছর পর টিএএজি ইউরোপের আকাশে উড়তে সক্ষম হল, যদিও তা শর্তসাপেক্ষে। আজ ঘোষিত [১৪ জুলাই] ইউরোপীয়ান কমিশনের এক বিবৃতি অনুসারে অ্যান্গোলার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের “উন্নতি” চিহ্নিত করা গেছে এবং “টিএএজি ক্রমাগত তার নিরাপত্তা ঘাটতি কমিয়ে আনছে”, ইইউ কালো তালিকা থেকে কোম্পানীর নাম [যার প্রতীক, কালো সাবাল এন্টিলোপ বা হরিণ] সরিয়ে ফেলেছে এবং ইউরোপীয় দেশ সমুহে কিছু সময়ের জন্য বিমান উড্ডয়নের সুযোগ দিয়েছে- তারা পর্যবেক্ষণ করবে এর প্রয়োগ। যে সমস্ত গন্তব্যে যাত্রা করার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে তা হল পর্তুগালের রাজধানী লিসবন। সেখানে টিএএজি লুয়ান্ডা থেকে প্রতি সপ্তাহে দশটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে। তবে অ্যান্গোলার মধ্যে থেকে বা হতে যে সমস্ত বিমান সংস্থা রেজিস্ট্রি করেছে তাদের এখনো ইউরোপে বিমান যাত্রা পরিচালনা করা নিষেধ। এ ছাড়াও এ ধরনের বিমান, যেমন বোয়িং বি-৭৭৭, যা ডি২-টিইডি হিসেবে নিবন্ধন করেছে, টিইই-ডি২ এবং ডি-টিইএফ, মনে হচ্ছে ইউরোপের আকাশে প্রবেশ তাদের জন্য নিষিদ্ধ, যতক্ষণ না কোন যৌক্তিক কারণ থাকে। আমার কাছে মনে হচ্ছে বিমান কেনার পরিকল্পনার উপর এখানে কোন বিশেষ সম্প্রদায়ের কর আদায়ের বিষয় রয়েছে। কিন্তু এই কোম্পানী সম্প্রতি সংঘটিত হওয়া দুর্ঘটনায় যুক্ত থাকার কারণে…..

এরোগ্রামা ব্লগের [পর্তুগীজ ভাষায়] আফন্সো লয়রিয়েরও- এই সংবাদ সম্বন্ধে লিখেছেন, যে ভাবে অ্যান্গোলা এই বিষয়টি বোঝাপড়া করেছে তিনি তার সমালোচনা করেছেন:

“As atribulações da companhia aérea de bandeira angolana com as autoridades europeias são já sobejamente conhecidas. A habitual arrogância com que Angola encara críticas, esperando que se adaptem as leis internacionais à realidade angolana e não o contrário, apenas tem dificultado mais o processo de certificação da TAAG que a autorizará a voar para a Europa de novo. Tudo o que um estrangeiro possa dizer de Angola é passível de ser mal interpretado e distorcido, por isso, mais não digo, com receio de que tudo isto seja lido e interpretado como o devaneio de um estrangeiro branco em Angola. Na verdade, prefiro ser apenas porta-voz do que os angolanos pensam da situação da TAAG, que reconhecem haver uma certa desorganização e informalidade na maneira como a companhia opera.”

“আ্যান্গোলার জাতীয় পতকা বহনকারী উড়োজাহাজ ও ইউরোপীয় কমিশনের মধ্যে যে বিবাদ তা সকলের পরিচিত। আ্যান্গোলা উগ্র সমালোচনা সহ্য করেছে। আশা করা যায় আ্যান্গোলার বাস্তবতায় আর্ন্তজাতিক আইন প্রয়োগ করা তার বিপরীত কোন কাজ নয়। এতে টিএএজির প্রশংসাপত্র পাবার ব্যাপারটি আরো জটিল করে তুলবে। একই সাথে ইউরোপে আবার তার যাত্রাকে জটিল করে তুলবে। আ্যান্গোলায় বাস করা যে কোন বিদেশী বলবে যে, আ্যান্গোলা বিষয়টি ভুল বুঝবে এবং বিকৃত করবে। আমি কিছুই বলছি না। ভয় ছাড়া যা কিছু্ই পড়া ও অনুবাদ করা হচ্ছে, তা আ্যান্গোলার একজন সাদা চামড়ার মানুষের স্বপ্ন। আসলে আমি টিএএজির আবস্থা বিবেচনা করে আ্যান্গোলার জনগণের মুখপাত্র হতে পছন্দ করি। তারা ধরতে পেরেছে যে এখানে বেশ অসংগঠিত কিছু বিষয় রয়েছে এবং অনানুষ্ঠানিকতা রয়েছে, যে ভাবে কোম্পানীটি চলছে সেই বিষয়ে”।

ইউরোপে কালো তালিকাভুক্ত সকল বিমান পরিবহণের নাম দেখার জন্য নিচের প্রেস রিলিজ বা প্রকাশিত সংবাদ তালিকাটি দেখুন: ইউরোপীয়ান এয়ারস্পেস কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত এয়ারলাইন্সের নতুন তালিকা কমিশন যোগ করেছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .