বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জিম্বাবুয়ে: সমস্যা মোকাবেলা করা এবং সাহায্যের জন্য আবেদন

Civicus.org

Civicus.org

দ্যা সিভিকস ওয়ার্ল্ড এ্যালায়েন্স ফল সিটিজেন পার্টিসিপেশন নামের দক্ষিণ আফ্রিকার সংগঠনটি টাইম টু অ্যাক্ট প্রকাশিত করেছে, এটি অনলাইন ভিডিওর সমষ্টি যেখানে জিম্বাবুয়ের জনগণ অনেকগুলো সমস্যা উপস্থাপন করা হয়েছে। এইসব সমস্যার মধ্যে দিয়ে এখন দেশটি যাচ্ছে। যার কারনে দেশটির জনসংখ্যা লোপ পাচ্ছে এবং জীবন যাত্রার মান হ্রাস পাচ্ছে। নীচে তিন খন্ডের ভিডিওতে নাগরিকরা টাকার মুল্যমান হ্রাস পাওয়া নিয়ে আলোচনা করছে, তা তাদের খাবার ও পোশাক কেনার উপর প্রভাব ফেলছে, তারা সংঘর্ষের কথা বলছে এবং মধ্যস্থতাকারি যেমন সাউথ আফ্রিকান ডেভলাপমেন্ট কমিউনিটির কাছে সাহায্য প্রার্থনা করছে।

ভিডিওর প্রখম খন্ড শুরু হয়েছে একজন তরুণ ছাত্রকে দিয়ে, যে বলছে কেন জিম্বাবুয়ের লোকজন স্বাধীন নয়: তারা খাওয়ার ক্ষেত্রে, নিজেদের মতো কাপড় পরার ক্ষেত্রে, নিজেদের লালন পালন করার ক্ষেত্রে, শিক্ষকের কাছে শেখার পর তাকে উপযুক্ত সন্মানি দেবার ক্ষেত্রে, যদি রোগাক্রান্ত হয় তাহলে হাসপাতালে সাহায্য চাওয়ার ক্ষেত্রেও তারা স্বাধীন নয়, এমনকি তারা অন্য দেশের মুদ্রা ব্যবহারের কারনে কোন পণ্যদ্রব্য কেনার সময় স্বাধীন নয়। জিম্বাবুয়ে ডলারের বদলে দেশটিতে কেনাবেচার জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার মুদ্রা রান্ড ব্যবহার হয়। পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়েছে। এতটাই খারাপ, যে লোকজন বিশ্বাস করে অনেক স্তরে কর্ম পদ্ধতি ভেঙ্গে পড়েছে: স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, অর্থনীতি, এবং সরকার। স্বাস্থ্য- জ্ঞান, অসুস্থ্য লোকেরা হাসপাতালে আসে এবং সেখানে মারা যায়। কারন তাদের প্রতি মনোযোগ দেওয়া হয় না। এমনকি তারপরেও মৃতের প্রতি কোন শ্রদ্ধা নেই, কেবল মর্গ থেকে মৃতদেহ নেবার জন্য পরিবারকে অতিরিক্ত টাকা প্রদান করতে হয়।

এখানে ভিডিওর দ্বিতীয় খন্ড, এতে লোকজন বলছে কিভাবে নতুন ভাবে অর্থনৈতিক পতন সম্প্রদায়ের উপর প্রভাব ফেলছে: জিম্বাবুয়েতে ডলারে যে বেতন পরিশোধ করা হয় তা আরো স্থিতিশীল মুদ্রায় বদলে ফেলা হয়, এমনকি জীবনের জন্য প্রয়োজন নিত্যপ্রয়োজনী দ্রব্য কেনার জন্য এটাই যথেস্ট নয়। আরেকটি বিষয় এখানে আলোচনা করা হয়েছে, তা হলো দেশটির মানবাধিকার লংঘন এবং স্বাধীন ভাবে কথা বলার সীমাবদ্ধতা, যা বর্তমানে দেশটি মোকাবেলা করছে।

ভিডিওর তৃতীয় ও শেষ ভাগে রয়েছে সাহায্যের জন্য আবেদন এবং মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানের কাছে সমর্থন লাভের আশা করা, দি সাউথ আফ্রিকান ডেভলাপমেন্ট কমিউনিটি বা দক্ষিণ আফ্রিকার উন্নয়নকামী সম্প্রদায় এবং দক্ষিণ আফ্রিকার সরকারের কাছে। তারা আশা করছে সাহায্যকারীরা এসে এই অবস্থাকে গুরুত্বের সাথে নেবে এবং আফ্রিকার প্রাক্তন রুটির ঝুড়িকে সাহায্য করবে যা এখন আফ্রিকার ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .