বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

আরব বিশ্ব: চাকুরী হারানো শুরু হয়েছে?

সংবাদের হেডলাইনগুলো অর্থনৈতিক মন্দার খবরে ছেয়ে যাওয়ার সাথে সাথে বিভিন্ন সরকার, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও উদ্যোক্তারা খরচ কমানোর প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে। ওদিকে আরব বিশ্বের ব্লগাররাও প্রশ্ন তোলা শুরু করেছে “এবার কি চাকুরী থেকে ছাঁটাই শুরু হবে?”

সৌদি আরব থেকে এনজিংঘা বর্ণনা করেছেন কিভাবে তার এক আত্মীয় কোম্পানী দেউলিয়া হয়ে যাবার পর চাকুরী হারিয়েছেন। তিনি জানাচ্ছেন:

তিন সন্তানের জননী ও বিধবা আমার ননদ কয়েক মাস আগে একটি নতুন চাকুরি শুরু করেছিলেন। তিনি ফোনের সাহায্যে গাড়ীর বীমার দালালি করতেন এবং তার চাকুরী এবং সংসারের জন্যে কিছু উপরি আয় নিয়ে বেশ সন্তুষ্ট ছিলেন। এছাড়াও সরকারী কর্মকর্তার স্ত্রী হিসেবে তিনি মাসে ১৫০০ সৌদি রিয়েল পেনশন পান। এই অর্থ ৩৭৪ আমেরিকান ডলারের সমান এবং আমার সম্প্রতি কেনা বাইসাইকেলটিও এই টাকায় হবে না। মাসে ১৫০০ সৌদি রিয়েল নিয়ে ভালভাবে বাঁচা সম্ভব নয়, বিশেষ করে যদি আপনাকে তিনটি সন্তানের ভরনপোষণ করতে হয়।

আপনি হয়ত লক্ষ্য করেছেন যে আমি তার চাকুরীর কথা বলতে অতীত কাল ব্যবহার করেছি কারন এখন তিনি আর কাজ করেন না। তাকে এবং তার সহকর্মী সবাইকে চাকুরী হতে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে কারন সেই কোম্পানীটি বন্ধ হয়ে গেছে। তাকে শুধু কয়েক সপ্তাহের নোটিশ দেয়া হয়। তার ঐ অবস্থার সাথে হয়ত বিশ্বের অনেক অঞ্চলের মহিলার পরিস্থিতি মিলে যাবে যারাও অর্থনৈতিক মন্দার কারনে চাকুরী হারিয়েছে। তবে বিশ্বের অন্যান্য স্থানের তুলনায় একজন সৌদি মহিলার কাজের সুযোগ কম।

সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে দ্যা গ্রেপশীশা ব্লগ একটি সিএনএন ভিডিওর লিংক দিয়েছে যা দুবাইয়ের অর্থনৈতিক মন্দা নিয়ে আলোচনা করেছে:

আপনি যদি খেয়াল করে শোনেন, জনসংখ্যার শতকরা ৮% কমে গেছে – কারন বেশ কিছু ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ কম।

ওয়েবজান্কি এই পোস্টে মন্তব্য করেছেন:

সত্যি বলতে কি আমি আশা করছি যে বেকারত্বের হার অচিরেই দুই অংকের সংখ্যায় পৌছাবে। দুবাইতে এই হার আগামী ৬-১২ ধরেই পরতে থাকবে কোন রকম ঘুরে দাড়ানো ছাড়া। অত্র অঞ্চলের বাজার এরই মধ্যে অস্বাভাবিক অবস্থায় আছে।

জর্ডানের মোয়ী, যিনি কুয়েতে থাকেন এবং কাজ করেন, সিএনএন এর ঐ ভিডিও সম্পর্কে বলছেন:

কুয়েতেও আমাদের কি একই হাল হবে?

পাঠক দ্যা এম কোড তার উত্তর দিয়েছেন:

আমাদের কোথাও কোন কিছু আশা করা উচিৎ হবে না। এটি একটি বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দা। কিন্তু মানুষের চোখ দুবাইয়ের দিকে যখন এটি পরতে শুরু করেছে কারন কিছুদিন আগেও এর সূচক দ্রুত বাড়ছিল। কোন একদিন হয়ত দুবাই আবার তার পায়ে দাড়াতে পারবে। সারা বিশ্বের আরবদের জন্যে তারা একটি গর্বের বিষয়, আমি তাদের সাফল্য কামনা করছি।

সার্কাস্টিক গাই ইউএই কমিউনিটি ব্লগে এই ঘোষণা দিয়েছেন:

দুবাইয়ের তিনজন নামকরা ব্যবসায়ী স্বীকার করেছেন.. মানে.. নিশ্চিত করেছেন যে দুবাইয়ের বাজার অর্থনীতি এখনও ভাল অবস্থায় এবং মন্দার এসব খবর ভিত্তিহীন। চীনা, ভারতীয় এবং ব্রিটিশ এই তিন ব্যবসায়ী জানিয়েছেন যে দুবাই এখনও সম্ভাবনার স্বর্গরাজ্য এবং সহানুভূতিশীল ও ব্যবসায়ীবান্ধব সরকার তাদের নিরাপত্তার জন্যে সব ধরনের ব্যবস্থা নিচ্ছে।

এই লেখায় প্রকাশিত হতাশা পাঠকদের কাছেও ছড়িয়েছে যাদের মন্তব্য দেখা যাবে এই পোস্টে

দুবাই মেটব্লগস এর শামসীরও লেখার বিষয়বস্তু ছিল চাকুরী ছাঁটাই।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .