বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পুরোনো বছরকে পুড়িয়ে দেয়া: নতুন বছরের ঐতিহ্য

শাভেজ

অনেক দক্ষিণ আমেরিকার দেশে এটা ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে যে পুরানো বছরের প্রতিভু হিসেবে মানুষের প্রতিমুর্তি পোড়ানো, এই লক্ষ্যে যে ওই বছর যা কিছু খারাপ নিয়ে এসেছে সে সব থেকে যেন মুক্তি পাওয়া যায় আর নতুনের পথ তৈরি হয়। নীচের ভিডিওতে এরকম কয়েকটা ঐতিহ্য দেখানো হয়েছে আর এর মধ্যে কয়েকটা বির্তক সৃষ্টিও করেছে। উপরর চিত্রটি তুলেছেন কিরোফোনো আর মুর্তিটি ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট হুগো সাভেজের।

গুয়েতেমালায় এই মুর্তি পোড়ানো হয় ডিসেম্বরে ৭ তারিখে, যেদিন তারা বলে যে কুমারী শয়তানকে হারিয়েছিলেন। তারা যা করে তা হলো সব কিছু পুরানো, ভাঙ্গা আর কাজে আসবে না এমন জিনিষ পুড়িয়ে ফেলে তাদের বাড়ির। কারন তারা বিশ্বাস করে যে শয়তান সারা বছরব্যাপী এইসব জিনিষের মধ্যে লুকিয়ে থাকে, আর এই দিনে যেদিন সে সব থেকে র্দুবল থাকে, তারা তাকে বাড়ি থেকে বের করে দিতে পারে। অনেকে অবশ্য পিনাটা বা মুর্তি কেনে শয়তানের পুড়ানোর জন্য, ঐতিহ্য রক্ষা করতে। নীচের ভিডিও এমন একটা বন ফায়ার (খোলা আগুণ) দেখায় যার উপরে শয়তানের একটা মুর্তি বসানো আছে:

নীচের ভিডিওটা ইংরেজীতে যেখানে শয়তানকে পোড়ানোর পেছনের গল্পটা বলা হয়, আর পোড়ানোর নতুন একটা দৃষ্টিকোন তুলে ধরা হয়। অনেকেই চিন্তিত যে এই প্রথাগত অনুষ্ঠান পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর, কারন মানুষ তার বাড়ীর অনেক জঞ্জাল পুড়িয়ে ফেলে কিন্তু সেটা কি বস্তু দিয়ে তৈরি তা চিন্তা না করে। আর একটা বির্তক উঠেছে যে গুয়েতেমালা মুলত ক্যাথোলিক হওয়া সত্ত্বেও, এভাঞ্জেলিকান খ্রীষ্টানরা মনে করে যে পুড়ানো আসলে মূর্তিকে মহিমান্বিত করে, আর বিশ্বাস করে যে এটা একটা পৌত্তলিক আচার যা পালিত হওয়া উচিত না।

ইকুয়েডরে মূর্তি পুড়ানো হয় নতুন বছরে, আর তা শুধুমাত্র শয়তানের আকারে না, বরং অন্যান্য চেহারাও নিতে পারে। পুরানো কাপড়ের ভিতরে কিছূ কাঠের টুকরা, সংবাদপত্র আর দাহ্য পদার্থে ভর্তি করে তৈরী। অন্যগুলো তৈরী হয় কাগজের মন্ড আর কার্ডবোর্ড দিয়ে। বেশীরভাগ টেলিভিশন বা চলচ্চিত্রের চরিত্র দ্বারা প্রভাবিত যা আপনারা এই ভিডিওতে দেখা যাবে লিজগাবা রাস্তায় নেমেছে রেকর্ড করতে বিভিন্ন ‘আনো ভিজো’ পুতুল যা কিনতে পাওয়া যায়:

ইকুয়েডরে, শুধুমাত্র পুরানো বছরকে প্রতিনিধিত্ব করা জিনিষ পুড়ানো হয় না, বরং তরুণরা রাস্তায় নেমে আসে বিধবা সেজে পুরনো বছরের জন্য কাঁদতে কাঁদতে আর কেউ কেউ টাকাও চায়। মেগাস্যান্সের তোলা পরের ভিডিওতে ইকুয়েডরের কুইন্টো শহর পরিভ্রমণে বিভিন্ন পুতুল আর বিধবাদেরকে দেখা যায়:

কলাম্বিয়াতে, মোকাও শহর পুতুমায়োতে, একটা প্যারেড হয় যেখানে এলিগোরিকাল পুরানো বছরের মূর্তিদের তৈরি করা হয় জীবন্ত চিত্রপটে, বা তাদেরকে দিয়ে গত বছরে কি হয়েছে তা উপস্থাপিত করা হয়। প্যারেডের পরে, মৃত বছর থেকে মজার শেষ উইল আর স্বীকারোক্তি পড়ে শোনানো হয় মধ্যরাতে, মানুষ তাদের পুরানো বছরের মূর্তি পুড়ায়, যা আপনারা নীচের ভিডিওতে দেখবেন:

আপনি যে যে অঞ্চলে আছেন সেখানে কিভাবে বছরকে বিদায় জানানো হয়?

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .