বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গাজা/এসডেরট: ইজরায়েল এবং প্যালেস্টাইন একসাথে ভিডিওতে

গাজা/এসডেরট: সব প্রতিকুলতার মাঝেই জীবন নামক প্রকল্প একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ কিভাবে অনলাইন মিডিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন সংস্কৃতির মধ্যে সেতুবন্ধন গড়া যায়। ফরাসী জার্মান সাংস্কৃতিক টিভি চ্যানেল আর্টে.টিভির পৃষ্ঠপোষকতায় গঠিত এই প্রকল্পে সহিংসতা পূর্ণ সীমানতের দুইদিকে বারজন মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রা একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে। দশ সপ্তাহের এই প্রকল্প গত ২৩শে ডিসেম্বর শেষ হয়েছে। গত দুই মাসে প্যালেস্টাইনের গাজার ছয়টি এবং সীমান্তের ওপারে ইজরায়েলের এসডেরটের ৬টি চরিত্রের জীবনযাত্রার খন্ডাংশ প্রতিটি দুই মিনিট দৈর্ঘের ভিডিওতে ধারণ করা হয়েছে।

অনলাইন মিডিয়ার একটি আশ্চর্য সুবিধা আছে যে এটি আন্তর্জালিক, একে অপরের সাথে ক্রিয়া করতে পারে। আপনি ৮০টি ভিডিও বিভিন্নভাবে দেখতে পারেন। আপনি এদেরকে সময়ের ক্রম অনুসারে দেখতে পারেন, প্যালেস্টাইনের একটি ভিডিও ডানে ও ইজরায়েলের একটি ভিডিও বামে। আপনি একটি বিশেষ চরিত্রও ঠিক করে গত দুমাসে তার উপর নির্মিত সব ভিডিও দেখতে পারেন। আপনি ম্যাপ দেখে কোন নির্দিষ্ট স্থানে নির্মিত ভিডিও দেখতে পারেন, অথবা একটি বিষয় নির্বাচন করতে পারেন, যে বিষয় নিয়ে যে সব ভিডিও নির্মিত হয়েছে সব দেখতে পারেন। আপনি একটি নির্দিষ্ট ভাষাও ঠিক করতে পারেন: এর বিষয়বস্তু আরবী, হিব্রু, ইংরেজী, ফরাসী ও জার্মান ভাষায় পাওয়া যাচ্ছে। এই সাইট সব সময়ই আপনাকে সুযোগ দেয় তা দেখতে যে একই সময় সীমান্তের ওপারে কি ঘটছে। ফলে দর্শকরা আঁচ করতে পারে যে সীমান্তের উভয় পাশের জীবনযাত্রার মধ্যে পার্থক্যের চেয়ে সাদৃশ্যই বেশী। উভয় দিকের মানুষেরই আশা, স্বপ্ন এবং উদ্বেগ রয়েছে।

উদাহরণ স্বরুপ, হেবা সাফী গাজার তরুণ সাংবাদিক সংঘের একজন সদস্যা এবং তিনি বেশ কটি ভিডিওতে তার ওবং তার পারিপার্শিক জীবন সম্পর্কে বর্ণনা করেছেন। চিকিৎসা সুবিধা, প্যালেস্টাইনের যুবাদের কথা, মেয়ে হিসেবে তার জীবন, বন্ধুত্ব, কেনাকাটা, খেলাধুলা এবং তার পেশা ইত্যাদি বিষয় আলোচনা ছাড়াও তিনি তার আশা জানিয়েছেন যে সবকিছু ভালোর দিকে এগুবে। নীচের ভিডিওতে তিনি মেয়ে হিসেবে সাংবাদিকতা ক্যারিয়ার গড়ার ব্যাপারে বলছেন:

ড্যানিয়েল মোরদেচাই দর্শকদের জানাচ্ছে ১৬ বছর বয়সী একজন মেয়ের দৃষ্টিতে এসডেরটে জীবন কেমন তা। তিনি অভিনয় করেন এবং একইসাথে স্কুলে পড়াশোনা করেন। নীচের ভিডিওতে তিনি “রেড এলার্ট” খেলেন তার দেখাশোনা করা সেইসব শিশুদের সাথে, পৃথিবীর একমাত্র সুসংরক্ষিত খেলার যায়গায়:

নীচের ভিডিওতে গাজার বিভিন্ন চরিত্রের পরিণতি দেখানো হয়েছে:

এসডেরটের বিভিন্ন চরিত্রের পরিণতি দেখানো হয়েছে এই ভিডিওতে:

এছাড়াও আরও অনেক গল্প আছে যেগুলো আপনারা দেখতে পাবেন ছাত্র-ছাত্রী, গৃহবধু, মৎসজীবি, এমব্যুলেন্স ড্রাইভার, মার্শাল আর্ট প্রশিক্ষক, কৃষক, ডাক্তার, মুদি দোকানের মালিক এবং নাপিত ইত্যাদি বিভিন্ন চরিত্রের বর্ণনায়। সব মিলিয়ে এইসব চরিত্র শান্তির গভীর আশা প্রকাশ করে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .