বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভারত: মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলা চলছে

যেটাকে মনে হচ্ছে পরাবাস্তব অনুভূতি, টেলিভিশন চ্যানেলগুলো দক্ষিণ মুম্বাই এর সন্ত্রাসীদের আক্রমণের স্থান থেকে ফুটেজ দেখাচ্ছে। আল্ট্রাব্রাউন লিখেছে:

স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র, হাত গ্রেনেড আর সম্ভবত একটা ট্যাক্সী বোমা ব্যবহার করে একটা বড় মাপের সন্ত্রাসী হামলা এই মুহূর্তে চলছে দক্ষিণ মুম্বাইয়ে। ধারণা করা হচ্ছে যে কমান্ডো আর মিলিটারীকে ডাকে হয়েছে। টিভিতে সরাসরি সচিত্র প্রতিবেদনে গুলির আওয়াজ শোনা যাচ্ছে।

আর যে দেশ প্রায় নিজেকে সন্ত্রাসী হামলার সম্মুখীণ দেখতে পায় তার লজিস্টিক্স নিয়ে লিখেছেন মিন্ডারিং থটস:

মুম্বাই থেকে একজন বন্ধু ফোন করেছিল জানতে আমি ভালো আছি কিনা আর জানালো যে সে তার ফোন কন্টাক্ট লিস্ট নতুন করে সাজিয়েছে- দেশের প্রত্যেক মেট্রো শহরের জন্য একটা করে। তাতে প্রত্যেকবার যখন বিস্ফোরণ হয় তখন পরিবার ও বন্ধুদের খবর নিতে সুবিধা হবে।

আমি এখন বুঝতে পারছি যে তার কথার মূল্য আছে।

চিন্তার বিষয় যে এরই মধ্যে বিভিন্ন উৎস থেকে পরষ্পর বিরোধী তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। যখন কিছু মূল ধারার মিডিয়া সূত্র জানাচ্ছে যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে, অন্যরা এমন ধারণা দিচ্ছে যে কিছু হোটেলে হয়তো জিম্মি পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে, সন্ত্রাসীরা বিশেষ করে বিদেশী নাগরিকদের জিম্মি করে রাখছে।

মুম্বাই থেকে টুইটার মেসেজগুলো প্রথম এই খবর জানায়। ম্যানিক স্ক্রাইব লিখেছে:

ভারতের মুম্বাইয়ে একদল সন্ত্রাসী সুপরিকল্পিতভাবে আক্রমণ চালাচ্ছে এই খবর প্রথমে আর কোথাও না, টুইটারে আসতে শুরু করে। আমি তখন মুম্বাইয়ে থাকা কয়েকজনের টুইটার মেসেজ অনুসরণ করা শুরু করি। তারা আসলে বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছে।

ইন্ডিয়া রিটোল্ড লিখেছে:

তারা এখনো ওখানে আছে, গুলি করছে আর আপেক্ষা করছে পুলিশের সাথে লাগার। ওবেরয় হোটেলের লবিতে আগুণ লাগানো হয়েছে। কোলাবায় এখনি এটা টাইপ করার সময়ে একটা পেট্রোল পাম্প উড়িয়ে দেয়া হয়েছে। দাদার স্টেশন খালি করানো হয়েছে। ভিলে পারলেতে বিস্ফোরকে ভরা একটা ট্যাক্সি উড়িয়ে দেয়া হয়েছে। জিটি হাসপাতালে দুইজন সন্ত্রাসী ঢুকেছে। মেট্রো সিনেমার কাছে তারা পুলিশের সাথে গুলি বিনিময় করছে। কয়েকজন সন্ত্রাসী একটা পুলিশ জীপ ঘিরে তার চারপাশে ঘুরে আবিরাম গুলি করছে। অন্তত নয় জায়গা থেকে বিস্ফোরণ/গুলি/ হাত গ্রেনেড ছোড়ার খবর পাওয়া গেছে। আর এখন মধ্যরাত পার হয়ে গেলেও সংখ্যা বাড়ছেই। টিভিতে গুলির আওয়াজ এখনো শোনা যাচ্ছে। এখন রাত ১২:৩১ বাজে।

সময় যতো যাচ্ছে ব্লগে আরো প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। ডুইং সামথিং ফর মাই কান্ট্রি!! তে একটা ক্ষোভযুক্ত পোস্ট:

আমি ভাবি যে আর কি হলে আমাদের তথাকথিত নেতারা উঠে দাড়াবে লক্ষ্য করার জন্য যে কি ঘটেছিল আর আবার ঘটছে… তারা অবশ্য ভারতীয়দের জীবনের মূল্য বোঝে না, নাহলে কিছু দৃঢ় পদক্ষেপ নেয়া হয়তো হতো ইতোমধ্যে… ভারতীয় রাজনীতিবিদদের দুর্বল আর ভীতু বলা শতকের সব থেকে কমিয়ে বলা মন্তব্য হবে…

সপ্তাহের মাঝের দিকের এক দিনে বেশ রাত্রে এই হামলা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে যে কয়েক দিন সময় লাগবে শহরকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে। (একদা ছিল) মুম্বাইওয়ালা লিখেছেন:

এখন সময় ২৭ নভেম্বরের রাত ০০.১৭ মিনিট। টুইটারে সিএনএন জানাচ্ছে যে শহর আবার অবরোধ করা হয়েছে। সিএসটিতে একটা গ্রেনেড ফেটেছে আর কোলাবাতে গুলি চলেছে। এনডিটিভি.কম সরাসরি দেখাচ্ছে যে ওবেরয় এর লবিতে আগুণ দেয়া হয়েছে আর তাজ আর ট্রাইডেন্ট হোটেলে এনকাউন্টার চলছে।

কেন্দ্রীয় লাইনের ট্রেন থামিয়ে দেয়া হয়েছে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত। এখন পর্যন্ত ২০ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এই পোস্টটি মুম্বাইয়ের সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে গ্লোবাল ভয়েসেসের বিশেষ কাভারেজের অংশ।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .