বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জাপান: ব্লগ যুগে একজন গেইশার জীবন

জাপানের অন্যতম এক প্রাচীন পেশা গেইশা। সঙ্গীত থেকে কবিতা ও প্রাচীন নৃত্য থেকে কথোপোকথন সকল বিষয়ে তারা দক্ষ। কিন্ত আজকের গেইশারা তার চেয়েও বেশী কিছু করে। প্রাচীন গেইশাদের মতোই আধুনিক মাইকো (শিক্ষানবীশ গেইশা) ও গেইশা শিল্পীরাও, তাদের প্রতিদিনের জীবন যাপন ও চিন্তা ডাইরীতে লিখে রাখে। তবে আজকের এই ব্লগের যুগে তারা এই লেখাগুলো ব্লগে প্রকাশ করে তাদের ভক্ত ও খদ্দেরদের কাছে পৌঁছাতে পারে।

গেইশা হাউস চিকাডার ব্লগে কয়েক মাস আগে এক ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল, ‘গেইশা প্রয়োজন’ (芸者さん募集中)।

芸者さんになるには、どうしたらいいですか?
芸者さんになる道は、普通あまり知られていないので、これはとてもよく聞かれる質問です。
じつは、芸者さんになるには“資格”は必要ありません。年齢についても、さしたる制限はありません。
芸者さんになるために必要になってくるのは"人としてのマナー”と"おもてなしの心”です。
マナーは後からいくらでも身につきますが、芸者さんにとって最低限のマナーというのは一般の方のそれとはレベルが違います。
芸者さんになるための基本的な面接を通過した後、マナーについては徹底的に訓練して身に付けていくことになるでしょう。先輩や男性の立て方、返事の仕方、話し方から広範囲にわたって基礎を身に付けていただくことになります。おもてなしの心とは、日本人の美意識とも言えるもので、これは生まれ持ったし才能やセンスが大きく影響しています。

কি ভাবে আমি একজন গেইশা হতে পারি?
যারা গেইশা হতে ইচ্ছুক তারা সবসময় এই প্রশ্নটি করে ।
আসলে গেইশা হতে কোন বিশেষ শিক্ষাগত যোগ্যতা লাগে না, আর তার জন্য বয়স কোন বাধা নয়। মানুষ হিসেবে যতটুকু ভদ্রতাজ্ঞান থাকা দরকার তা থাকলে এবং এক আন্তরিক হৃদয় থাকলেই গেইশা হওয়া যায়। পরে যে কেউ যত ইচ্ছে ভদ্র আচরণ শিখতে পারে। তবে সাধারণ ব্যক্তির জন্য যতটা প্রয়োজন গেইশা হতে গেলে তার চেয়ে কিছুটা ভিন্ন ধারার ভদ্রতা শেখা দরকার।

গেইশা হবার জন্য যে প্রাথমিক পরীক্ষা নেওয়া হয় তাতে পাশ করার পর পুরোপুরি ভদ্র আচরণ -এর প্রশিক্ষণ নিতে হয়, যাতে সে এ বিষয়ের সবকিছু জানে। এতে সে ভদ্রতার মৌলিক বিষয়গুলোর অনেক কিছু জানতে পারবে: সাধারণ মানুষ ও বয়স্ক জনগণকে কোথায় স্থান দিতে হবে এবং কিভাবে সবার মাঝে সাড়া দিতে হবে ও কথা বলতে হবে। জাপানী জনগণের সৌন্দর্য আতিথেয়তার শক্তির মধ্যে নিহিত এবং তা জন্মগত প্রতিভা ও রুচির মধ্যে দিয়ে প্রভাবিত হয়।

人気の舞妓さんも登場=芦原温泉で奉納の踊り পোস্ট করেছেন (C)ふるさと福井ビデオレター

ইন্টারনেট ব্যবহার করে নতুন নতুন সম্ভাবনার মধ্যে দিয়ে গেইশারা তাদের ঐতিহ্যকে সংরক্ষন করতে পারে। তারা অন্যলোকদের (তাদের খদ্দের বা ভক্ত অথবা অন্যান্য ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের) তাদের সম্পর্কে জানাতে পারে। তারা এই শৈল্পিক পেশাকে জীবন্ত করতে পারে যা অনেক লোক বিশেষ করে বিদেশীদের ধারণায় আছে যে অতীতের এক প্রথা অথবা শুধুই পোষ্টকার্ডের মতো জাপানের সংস্কৃতির একটি চিত্র হিসেবে। এমনকি অনেকে এই পেশাকে পতিতাবৃত্তির সঙ্গে গুলিয়ে ফেলে।

এই বিভ্রান্তি দুর করা এবং গেইশাদের ভূমিকার কথা বোঝানোর জন্য শাকুকাজু তার ব্লগ অফ দি গেইশা হাউজ কিটা শিনচিতে লিখছেন। এই গেইশা বাড়ীতে তিনি নিজে অবস্থান করছেন এবং বর্ণনা করছেন গেইশাদের কাজ কি এবং টি হাউস (চা গৃহ) কি?

仕事

私達芸者は 名前の通り お座敷などで踊りを踊ったり・三味線を弾いたりもしますが・・・
お席で お客様とお話をしたり お席を盛り上げたり またその場の雰囲気をみて お座敷を進めるのも私達芸者の仕事なんです。

পেশা:
নাম থেকেই অনেকে গেইশাদের পেশা সমন্ধে ধারনা পেতে পারে (গেইমানে শিল্প, আর শা মানে ব্যাক্তি)। আমরা গেইশারা কারো ব্যাক্তিগত অনুষ্ঠানে নাচি বা শামিশেন (প্রাচীন তারের বাদ্যযন্ত্র) বাজাই। তবে আমরা গ্রাহকদের সাথে কথাবার্তা বলি এবং এমন এক পরিবশে তৈরী করি যাতে তারা আনন্দ পায়। আসলে কোন অনুষ্ঠান আনন্দদায়ক ভাবে চালিয়ে যাওয়াই গেইশাদের কাজ।

お茶屋

お茶屋と言っても お茶を売ったりしているお店じゃありませんよ。
お茶屋と言うのは・・・ 説明するのが難しいんですが
お茶屋で お客様が 芸者を呼んでお酒を飲まれり お座敷遊びをされり・・・
又 お客様から 宴会やイベントなどに 芸者を呼んで欲しいと 連絡を頂いたら 手配をしたり・・・

টি হাউজ:
যদিও আমরা একে টি হাইজ বা চা খানা বলি, কিন্তু আসলে এটি কোন চা বিক্রি করার দোকান নয়।
প্রকৃতপক্ষে এর সমন্ধে সঠিকভাবে ব্যাখা করা একটু জটিল। তবে টি হাউসে, খদ্দেররা গেইশাদের সঙ্গ লাভ করতে আসে এবং পার্টি উপভোগ করে……অথবা গ্রাহকরা নিজেরাই আমাদের কোন পার্টির ব্যবস্থা করতে এবং অন্য গেইশাদের সেই পার্টিতে যোগদান করতে বলতে পারে।

গেইশা সময়সূচী
ছবিতে কিয়োটোর এক ভোজঅনুষ্ঠানে গেইকো আর মাইকোদের কাজের সময়সুচী টানানো রয়েছে

যে গেইশা গৃহে শাকুকাজু বাস করে সেইখানে থাকে সাকুরা। সে ব্যাখা করেছে কি ভাবে ব্লগে অন্য এক গেইশার কাহিনী পড়ে সে এই জগতে তার পেশা শুরু করে।

私、高校の時から舞妓さんに憧れていたのです。ですが、舞妓さんは15~およそ20歳までの限定。私がなりたいと思ったのは17歳の時で、親も「高校は卒業して」の一点張り。
京都の置屋さんや組合に問い合わせてみましたが「無理」か「芸妓さんからなら」との返事でした。
一度は諦めて普通のお仕事をしていたのですが・・・やはり諦められないものですねぇ。
なんとかならないか、と色々探していたところ・・・とあるブログを発見
それが、今私を引いて下さったお姉さんのブログだったのです
高級クラブ街だと思っていた北の新地に芸妓さんがいるのかーっ、と目から鱗。
そして、素敵なお着物姿のお写真に・・・一目ぼれ
早速連絡させて頂いて、お会いして頂いて(あまりにお姉さんがお綺麗なので、「私のような小娘がココにいていいのかーっ」恐縮 笑)、見習いさんさせて頂いて(素敵なお茶屋さんに感動 )、芸妓:さく良となったのです。

যখন আমি হাইস্কুলের ছাত্রী ছিলাম তখন থেকে আমি একজন মাইকো হতে চেয়েছিলাম । কিন্তু ১৫ থেকে ২০ বছর বয়সী একজন মেয়েই কেবল মাইকো হতে পারে। অবশেষে আমি আমার ১৭ বছর বয়সে মাইকো হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করি। আমার বাবা মা জোর দিচ্ছিলেন যেন আমি আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনা আগে শেষ করি। আমি কিয়োটোর বেশ কয়েকটি গেইশা গৃহ ও প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করি। আমি উত্তর পাই এটি অসম্ভব, অথবা তুমি কেবল একজন মাইকো হিসেবে তোমার জীবন শুরু কর।

এরপর আমি গেইশা হবার স্বপ্ন দেখা ছেড়ে দেই এবং সাধারণ পেশায় ঢুকে যাই, কিন্তু না—আমি আশা ছাড়িনি। আমি আসলে অন্য উপায় বের করার চেষ্টা করছিলাম—এর জন্য আমি এক বিশেষ ব্লগ খুঁজে পেলাম।

এটি ছিল এক প্রবীন গেইশার ব্লগ যা আমাকে এখানে নিয়ে এসেছে। যখন আমি অনুভব করলাম উত্তর শিনচিতেও গেইকো রয়েছে তখন আমি নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারিনি। এটি এমন এক এলাকা যেখানে সব উন্নতমানের ক্লাব। আর যখন আমি তাদের জমকালো জাপানী পোশাক কিমোন পরে তোলা ছবিতে দেখলাম– সাথে সাথে আমি তাদের প্রেমে পড়ে গেলাম।

কাজেই আমি তাদের কাছে অনুরোধ করলাম, যাতে তারা আমার সাথে যোগাযোগ ও স্বাক্ষাত করে (এ ধরনের চমৎকার মেয়েদের মাঝে গিয়ে আমি নিজেকে কোন অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়তে চাইনি। এটি আমার কাছে এক প্রশ্ন ছিল যে, তারা কি এখানে আমার মতো এক তরুণীর ডাকে সাড়া দেবে?)।

একজন শিক্ষানবীশ হিসেবে তারা আমাকে তাদের সাথে নিয়ে গেল তাদের চমৎকার টি হাউসে এবং এভাবেই আমি সাকুরা নামের গেইকোতে পরিণত হলাম।

অন্য একজন গেইশা নাওসুজু তার নিজস্ব ওয়েব পাতায় কিয়োটোর আঞ্চলিক ভাষায় বর্ণনা করেছেন এবং এই পেশার কলাকৌশল সম্পর্কে জানাচ্ছেন।

舞妓さんの髪は地毛で結います。
1週間、2週間と結ったままになるので、
寝るのも函枕ですし、お休みの日も髪の毛はそのままです。
でも芸妓の日本髪は鬘ですから随分違います。
芸妓に比べ、舞妓のほうが有名で
華やかなイメージかもしれませんが、
花街の主役はやっぱり芸妓、お客様を愉しませたり、
場を盛り上げたり… そんなことも要求されますし、
もちろん舞妓時代よりも舞や鳴り物(楽器)、
唄などすべて上を求められます。
難しいことではありますが、
特別大変というわけではなくて、
毎日のお稽古とお座敷の中で
徐々に培われていくものだと思っています。

মাইকোরা তাদের নিজের স্বাভাবিক চুল ব্যাবহার করে। তারা এক থেকে দুই সপ্তাহ চুলের স্টাইল বা বৈশিষ্ট বজায় রাখে। তারা শক্ত বালিশের উপর শোয় এবং তাদের চুলের স্টাইল পরিবতর্ন করে না। এমনকি যেদিন তারা কোন কাজ করে না সেদিনও।

কিন্তু জাপানে গেইকোদের পরচুলা দিয়ে চুলের স্টাইল তৈরী হয়। কাজেই এটি একটু আলাদা হয়।
গেইকোদের চেয়ে মাইকোরা বেশী জনপ্রিয়। সম্ভবত তাদের সৌন্দর্যের কারনে, কিন্তু গেইকোরা প্রকৃতপক্ষেই গেইশাদের মাঝে তারকা। তারা তাদের খদ্দেরদের সময়টাকে আনন্দদায়ক করে এবং চমৎকার পরিবেশ তৈরী করে। খদ্দেররা তাদের কাছ থেকে এটাই আশা করে। অবশ্যই আশা করা হয় যে তারা তরুণী মাইকোদের চেয়ে ভালোভাবে নাচ, গান ও বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে শোনাবে। কিন্তু তা আসলে সহজ নয়।

বিষয়টি এমন নয় যে কাজটি খুব কঠিন, কিন্তু এটি এমন এক শিল্পকলা যা একটু একটু করে গড়ে তুলতে হয়, প্রতিদিনের শিক্ষা ও অনুশীলনের মাধ্যমে।

舞妓さんは年齢制限がありますが、
芸妓は一生続けていける仕事です。
今は女性でも「手に職」なんて言いますけど、
芸妓はその先駆け、女性ならではの部分を生かしながら、
一生働ける、ホンモノのキャリアウーマンだと思います。

মাইকো হবার নিদিষ্ট বয়স আছে, কিন্তু গেইশা এক আজীবনের পেশা। বর্তমান মেয়েদের, বাজার অনুসারে দ্ক্ষ হতে বলা হচ্ছে। গেইকোরা এক্ষেত্রে খানিকটা এগিয়ে, বিশেষ করে তারা তাদের মেয়েলি বুদ্ধির প্রয়োগ করে তারা এগিয়ে যায়। তারা তাদের সারা জীবন ধরে যে পেশায় নিয়োজিত হবে তার যোগ্য এবং আমার দৃষ্টিতে তারাই আসলে পেশার প্রতি মনোযোগী মহিলা।

ইচিমামে একজন জনপ্রিয় মাইকো। বেশ কয়েকটি বিদেশী পত্রিকা ভুলক্রমে তার ব্লগকে তার প্রজন্মের প্রথম ব্লগ হিসেবে চিহ্নিত করে, কারণ এটি ইংরেজী ভাষায়ও লেখা হত। ব্লগে সে তার পেশা ও ব্যক্তিগত জীবন সর্ম্পকে লিখতো। দুর্ভাগ্যবশত গতবছর সে ঠিক করে সে আর তার ব্লগে লিখবে না। এরপর সে তার ব্লগ বন্ধ করে দেয়। তবে এখনও তার বেশ কিছু পোষ্ট অনলাইনে রয়ে গেছে

প্রতি মাসে অন্তত দুটি দিন আমার ছুটি। তবে যেদিন আমার ছুটি, সেদিনও আমি স্বেচ্ছায় স্থানীয় পার্টিগুলো দেখতে যাই। কাজেই এমনকি ছুটির দিনগুলোতেও আমি আমার চুলের স্টাইল মাইকোদের মতোই রাখি। যে সময় আমি আমার চুলের স্টাইল বজায় রাখি সে সময় আমি কিমোনো পরে বের হই। এই কিমোনো আমি প্রশিক্ষণের সময় পড়তাম। কখনও কখনও আমি আমার চুলকে ছেড়ে দেই। সে সময় আমি পশ্চিমা পোশাক পরি। সাধারনত খুব কম ছুটির দিনেই আমি পাশ্চাত্য পোশাক পরি। আমি ছুটির দিনগুলো আমার বন্ধুদের সাথে কেনাকাটা করে অথবা প্রিয় মিষ্টি খেতে খেতে নানা বিষয়ে আলোচনা করে কাটাই।

এখন এটা প্রমানিত যে যে পেশাগত জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ব্লগ গেইশাদের জীবনের অংশ হয়ে গেছে। যেমন ধরুন কয়েক মাস আগে অনশেন গেইশা তার ব্লগ অনশেন গেইশা নো ককোরো নো হিকিদাশি-তে অবসর গ্রহণের ঘোষণা দেন। তিনি গেইকোর মানে কি তা তুলে ধরেন:

突然ですが今回芸妓を引退することになり、そのためこのブログも更新を停止することにしました。

20歳という芸妓としては遅がけの出発から16年、ブログを始めて4年弱…
一言では語りきれないほど色々な事がありましたが、人の縁に恵まれたことが今、私の最大の財産になっていると思います。
芸妓をやってきて一番良かったと思うことは人として成長出来た事、これは置屋のお母さん、お姐さん達、そして何より今まで出会った沢山のお客様に感謝しております。

আমি এই বিশেষ ঘোষণার জন্য দু:খিত, কিন্তু আমি অবসরে চলে যাচ্ছি। কাজেই আমি আমার ব্লগকে নিয়মিতভাবে চালিয়ে যাবার কাজ ব্ন্ধ করে দিচ্ছি।

প্রায় ২০ বছর বয়সে গেইকো হিসেবে আমি কাজ শুরু করি এবং এরপর ১৬ বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেছে। আমি এই ব্লগ চালু করেছি প্রায় চার বছরের সামান্য কম সময় আগে।

আমার অনেক কিছু বলার আছে। সামান্য কয়েকটি শব্দে আমি তা বর্ণনা করতে পারি না। কিন্তু আমার সবচেয়ে বড় সম্পদ জনতার সাথে আমার সম্পর্কের। যাদের সাথে কাজ করেছি এবং যাদের সাথে আমার সাক্ষাত হয়েছে।

গেইকো হিসেবে যে বিষয়টি আমাকে সবচেয়ে আনন্দ দেয় তা হলো অমি মানুষ হিসেবে বেড়ে উঠেছি। এ কারনে, আমি যে গেইশা গৃহের অংশ ছিলাম সেখানকার রমণী ও অন্য সহকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা, কিন্তু সর্বোপরী আমি আমার অনেক খদ্দেরের প্রতি কৃতজ্ঞ যাদের সাথে আমার স্বাক্ষাৎ হয়েছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .