বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গুয়াতেমালার চলচ্চিত্র গ্যাসোলিনা ল্যাটিন আমেরিকার সেরা চলচ্চিত্র

গ্যাসোলিনা
গুয়েতেমালার সংবাদ কেউ যদি নিয়মিত পড়ে তাহলে সে জানবে অনেকগুলো বিষয়ে দেশটি প্রথম স্থানে রয়েছে; দুর্ণীতি, দারিদ্র, নিম্ন স্বাক্ষরতার হার, এবং নারী নির্যাতন। এই কারনে দেশটির ব্লগার ও শিল্পী সম্প্রদায় রোমাঞ্চ অনুভব করলো যখন তারা আবিস্কার করলো যে অবশেষে তাদের জন্য একটা আনন্দের সংবাদ এসেছে। দেশটি স্পেনের সান সেবাষ্টিয়ান চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা ল্যাটিন আমেরিকার চলচ্চিত্রের জন্য পুরস্কার পেয়েছে। গুয়েতেমালার তরুন চলচ্চিত্রকার হুলিও হারনান্দেজ তার গ্যাসোলিনা ছবির জন্য এই পুরস্কার লাভ করে।

দেশটিতে পয়ত্রিশের নীচে যে সমস্ত নাগরিক রয়েছে তারা সবাই এতে রোমাঞ্চিত, উল্লসিত এবং দেশটির সকল স্থানে চমৎকার সব মন্তব্য আসছে!

সবচেয়ে কৌতুহলী বিষয়টি ছিল সম্প্রতি পুরস্কারপ্রাপ্ত এই চলচ্চিত্রটি গুয়েতেমালাকে স্বর্গ, আদর্শ স্থান, বা সুখী কোন দেশ হিসেবে চিত্রিত করেনি, বরঞ্চ দেশটির এক ভিন্ন বাস্তবতাকে তুলে এনেছে। এটি এ বছরের দ্বিতীয় কোন গুয়েতেমালার চলচ্চিত্র যেটি পুরস্কার পেল। সান সেবেষ্টিয়ান চলচ্চিত্র উৎসবে গুয়েতেমালার একটি ছবি পুরস্কার পেয়েছে এই সংবাদটি প্রথম জানা ছবির এক কারিগরের ভাই, ব্লগার জ্যাকরি:

Son las 8:00 de la mañana hora de Guatemala y entra una llamada yo en ese momento todavía estaba durmiendo y mi mama contesta el teléfono luego solo escucho que ella empieza a llorar de la emoción al recibir la noticia desde España diciéndole de que habían ganado a la categoría en la que estaban nominados Horizontes Latinos.

গুয়েতেমালায় তখন সকাল ৮ টা। আমি তখনও ঘুমে । এমন সময় একটি ফোন আসে এবং আমার মা ফোনটি ধরেন। আমি শুনতে পেলাম তিনি উত্তেজনায় চিৎকার করছে কারন তিনি একটা ভালো সংবাদ পেয়েছেন যে তারা (তার ভাই ও সহকর্মীবৃন্দ) ল্যাটিন হরাইজন নামের চলচ্চিত্র পুরস্কারটি পেয়েছে।

চারাকোটেল হচ্ছেন গুয়েতেমালার এক গ্রাম্য ব্লগার যিনি এখন ডেনমার্কে বাস করেন। তিনি অনেক দুর থেকে হুলিওকে অভিনন্দন জানিয়েছেন এবং বলেছেন:

Haber logrado realizarla en Guatemala supone ya un triunfo, por la escasa -o nula- presencia institucional en el apoyo al arte, los obstáculos financieros, los cangrejos, etcétera, etcétera. El galardón es, entonces, doblemente merecido.

এ রকম এক অর্জন, গুয়েতেমালায় বসে এ রকম চলচ্চিত্র নির্মাণ আসলে এক বিশাল বড় সাফল্য। শিল্পের প্রতি প্রতিষ্ঠানসমুহের সমর্থন কমে আসা সংক্রান্ত অর্থনৈতিক বাধা ও তথাকথিত কাঁকড়া (যারা কাউকে প্রগতির পথে এগুতে দিতে চায় না) ইত্যাদি ইত্যাদি অনেক জটিলতা তো ছিলই। এ কারনেই চলচ্চিত্রটি ছিল পুরস্কার পাবার দ্বিগুণ যোগ্য।

ব্রাজিলের সান পাবলো তে শিল্পী হিসেবে বাস করা গুয়েতেমালার এক কবি ছিলেন দ্বিতীয় ব্যক্তি যিনি এই বিষয়ে রিপোর্ট করেন এবং তার ব্লগে এই বিষয়ের জন্য কিছু জায়গা উৎসর্গ করেন। তিনি এই লেখার একটা তাৎপর্যপূর্ণ শিরোনাম দেন:

লিটিল ফেইথ: ল্যাটিন আমেরিকান হরাইজন, যার মানে “দক্ষিন আমেরিকার দিকচক্রাবল: সামান্য বিশ্বাসের উদয়”:

Este merecido premio le dará la resonancia que merece a la película de nuestro querido Julio, al mismo tiempo que podrá poner en los ojos y oídos de muchos las imágenes y sonidos de la tan cacareada Guatemala de posguerra, con sus juventudes perdidas e incendiarias. Desde ya me pongo a ver cómo traemos ese largometraje para el Brasil, donde de seguro disfrutarán tan particular historia y la espléndida forma en que Julio la cuenta.

এই প্রাপ্য পুরস্কার আমাদের প্রিয় হুলিওর ছবিকে দুরদুরান্তে ছড়িয়ে দেবে এবং একই সময়ে যুদ্ধ পরবর্তী গুয়াতেমালার শব্দ ও চিত্রকে বহুজনের শ্রবণেন্দ্রিয় ও দর্শনেন্দ্রিয়র কাছে পৌঁছাবে। এখন থেকে আমি ব্রাজিলে এই ছবিটি আনার চেষ্টা করব এবং আমি নিশ্চিত যে তারা এই মৌলিক গল্প ও হুলিওর চমৎকার চিত্রায়নকে উপভোগ করবে।

গুয়েতেমালার একদল সৎ তরুনের এবং একজন মহান পরিচালকের উদ্যোগকে ধন্যবাদ (এই ছবি তরুণ অভিনেতা অভিনেত্রীর প্রায় সকলেই ছিলেন অপেশাদার)। আমরা আমাদের শহর, গল্প ও বাস্তবতা বিশ্বের আরো অনেকের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নেব। এটা কোন আদর্শ জায়গা না, কিন্তু এটা এমন একটা স্থান যেখানে এখনো কোন কোনা রয়েছে যেথায় স্বপ্ন সত্য হতে পারে। আশা করি যে কেউ তার শহরে গ্যাসোলিনা দেখতে পাবে! হাবেমোস গুয়েতামালা সিনেমা (গুয়েতেমালার চলচ্চিত্রের জয়)!

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .