বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জর্জিয়া: দক্ষিণ ওসেটিয়ায় যুদ্ধ

দক্ষিণ ওসেটিয়া সংকটের বিস্তারিত ও তাজা খবরের জন্যে গ্লোবাল ভয়েসেস বিশেষ কাভারেজ পাতা দেখুন

জর্জিয়ার দক্ষিণ ওসেটিয়ার বিচ্ছিন্নবাদীদের দ্বারা জর্জিয়ার গ্রামে বোমাবর্ষণের অভিযোগ ও বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের পর ভীতি ছড়িয়ে পরেছে যে আবার দক্ষিণ ককেশাসে যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়বে। প্রচার মাধ্যমে রিপোর্ট আসছে যে জর্জিয়ার সেনারা রাজধানি তস্কিনভ্যালি ঘিরে রেখেছে এবং সবাই এখন দেখতে চাচ্ছে যে রাশিয়া নতুন এই অগ্রগতিতে কি প্রতিক্রিয়া দেখায়। আন্কেল_ভানিয়া ব্যাটেলফোরামসে লিখেছেন যে এটা (সত্যিকারের) যুদ্ধ :

গতকাল মাত্র যুদ্ধ শুরু হয়েছে, জর্জিয়া বিশাল সেনা হামলা শুরু করেছে দক্ষিণ ওসেটিয়া দখলের জন্য, আর এ পর্যন্ত ১৫ জন বেসামরিক লোক মারা গেছে। দক্ষিণ ওসেটিয়ার রাজধানী তস্কিনভ্যালিকে জর্জিয়ার সেনারা ঘিরে রেখেছে আর জর্জিয়ার বিমানবাহিনী ক্রমাগত হামলা করছে। মাত্র কয়েক মিনিট আগে রাশিয়ার শান্তিরক্ষীদের সদরদপ্তর জানিয়েছে যে রাশিয়ার শান্তিরক্ষীদের ব্যারাকে অস্ত্র হামলা হয়েছে আর অনেক মানুষ আহত হয়েছে। রাশিয়া যুদ্ধে যাচ্ছে, সেনা মোতায়েন এখনো হয়নি কিন্তু শান্তিরক্ষী আহত হওয়ার পর আমাদের আর কিছু করার নেই, রাশিয়া জর্জিয়ার সাথে যুদ্ধে জড়িয়ে গেছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে যে রাশিয়ার এসইউ-২৪ বিমান জর্জিয়ার কারেল শহরে বোমা ফেলেছে। শহরের প্রধান পুলিশভবন বোমায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তবে প্রানহানির কোন খবর আসে নি। আমি যেমন বলেছি, রাশিয়ার সৈন্যরা ইতোমধ্যে উত্তর ওসেটিয়ার সীমান্তে জড়ো হতে শুরু করেছে এবং সংঘর্ষের কেন্দ্রস্থলে আজ কোন এক সময় অবস্থান নেবে।

এই অন্চলে অবস্থিত রাশিয়ান শান্তিরক্ষী বাহিনীকে জর্জিয়া সংঘাতের একটি পক্ষ মনে করে। এবং পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে কারন দক্ষিণ ওসেটিয়ার অধিকাংশ জনগণেরই রাশিয়ার নাগরিকত্ব (পাসপোর্ট) রয়েছে। অনেক প্রচার মাধ্যম জানাচ্ছে যে রাশিয়া জর্জিয়ার কেন্দ্রস্থলের নিশানায়ও আঘাত করছে। বি এন্ড সি গো টু জর্জিয়া ব্লগ (একজন পিস কর্পস স্বেচ্ছাসেবকের ব্লগ) ইতোমধ্যে জানিয়েছে যে এটি সত্যি হতে পারে:

ব্রেন্ডেন সকালে খাশুরির উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে প্রশিক্ষনার্থীদের একটি সেসনে যোগদান করতে.. কিন্তু আমি তিবলিসিতে থেকে গিয়েছি। তার আজ বিকেলে তিবলিসিতে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু গোরি বার হবার পর তারা দেখল যে প্রধান রাস্তা উড়িয়ে দেয়া হয়েছে (আমার মনে হয় কোন ইংরেজী সংবাদ মাধ্যমে এটি প্রচারিত হয়নি)।

এসব প্রমাণ করে যে জর্জিয়ায় আমাদের অবস্থানকালে এটিই সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি। এটি আমার নিজস্ব মতামত (পীস কর্পস বা আমেরিকান সরকারের নয়) যে পরিস্থিতি সম্পূর্ণ যুদ্ধাবস্থায় রুপ নিতে পারে।

এইড ওয়ার্কার ডেইলি একটি ভিডিও পোস্ট করেছে যার অপয়া শিরোণাম দিয়েছে “দক্ষিণ ওসেটিয়া – এটি যদি যুদ্ধ না হয় তাহলে কি আমি জানি না”। ওদিকে হরাইজনস আনলিমিটেড বিদেশী পর্যটকদের জর্জিয়া থেকে দুরে থাকতে বলেছে:

জর্জিয়াতে এটি এখন ঘটছে…দেশের সেনাবাহিনী বিচ্ছিন্নতাকামী দুই প্রদেশের একটি দক্ষিণ ওসেটিয়াতে ঢুকে পরেছে .. এবং রাশিয়ানরা তাদের ‘সাথীদের’ রক্ষার জন্যে বদ্ধপরিকর। রাশিয়ার শান্তিরক্ষীবাহিনীরাও হতাহতদের মধ্যে রয়েছে। রাষ্ট্রপতি মেদভেদেভ তার প্রতিরক্ষা কাউন্সিলকে ডেকেছেন, প্রধানমন্ত্রী পুতিন জোর গলায় বলেছেন রাশিয়া এর জবাব দেবে। জর্জিয়ার রাষ্ট্রপতি সাকাসভিলি রিজার্ভ সৈন্যদের ডেকেছেন।

এই অঞ্চল থেকে দুরে থাকাই ভাল।

নাখস্পিল অ্যাট পলেমার্কুস জানাচ্ছে যে দক্ষিণ ওসেটিয়ায় এই যুদ্ধ নতুন বিশ্ব মেরুকরনের জন্যে একটি বড় পরীক্ষা, তবে এই ব্লগার নিশ্চিত না যে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া পরিস্থিতিকে বাড়তে দেবে কি না:

আমি এ সম্পর্কে, এমনকি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে বিশেষজ্ঞ নই। কিন্তু একটা বিষয় দেখতে পাচ্ছি যে ঠান্ডা যুদ্ধের যে মৌখিক আস্ফালন, তার অনুপস্থিতি। বোঝা যাচ্ছে যে নেতারা নিজেরা এখনও মাঠে নামে নি, তাদের কুটনীতিকরাই যা বলার বলছে। কিন্তু এর মানে এটাও হতে পারে যে মস্কো আর ওয়াশিংটন একে একটি প্রধান আন্তর্জাতিক সংকটে পরিণত হতে দেবে না।

এই যুদ্ধ কোল্ড ওয়ার পরবর্তী নতুন বিশ্ব মেরুকরনের জন্যে একটি বড় পরীক্ষা, কারন সংঘাতটি রাশিয়ার একেবারে দোরগোড়ায়। আশা করছি নিও কনজারভেটিভ রবার্ট কাগানের কথায় নতুন ঠান্ডা যুদ্ধের এটিই শুরু না হয়।  এবং উপযুক্ত তথ্যের অভাবে এখনও এ সম্পর্কে ভবিষ্যৎবাণী করার সময় আসে নি। আমি ইউরোপীয়ান এবং আমেরিকার বিশ্লেষকদের আহ্বান করছি আমাদের জানাতে যে আমরা কি আশা করতে পারি। 

গ্রাউল অ্যাজ এ হাউজকীপার (রুশ ভাষায়) তার পাঠকদের পরিস্থিতির ব্যাখ্যা দিচ্ছে, এবং আরও জানাচ্ছে যে দক্ষিণ ওসেটিয়ার বেশ কটি ওয়েবসাইট ইতোমধ্যে হ্যাক্ড হয়েছে অথবা তাদের ব্লক করা হয়েছে। এই অঞ্চলে, যেখানে জিইয়ে রাখা সংঘাত এবং জাতিগত বিদ্বেষ স্থিতিশীলতাকে হুমকির মুখে ফেলে, টু কাপস অফ টি ব্লগ এই উপসংহারে এসেছে যে “সুন্দর দক্ষিণ ওসেটিয়া অঞ্চল যুদ্ধে বিদ্ধস্ত হচ্ছে“।

যুদ্ধ আজ বিশ্বের একটি নতুন অঞ্চলে সম্প্রসারিত হল। যে কোন যুদ্ধেই সাধারণ নাগরিকদের বিয়োগান্ত পরিণতি ভোগ করতে হয়। এই সংঘাতে জড়ানো পক্ষগুলোর কারও কাছেই এটি নতুন নয়।

তবে এটি বেশ বেদনাদায়ক যে জর্জিয়া, রাশিয়া এবং দক্ষিণ ওসেটিয়া একটি শান্তিপূর্ণ সমাধানে আসতে পারল না।[…]

আমরা শুধুই আশা এবং প্রার্থণা করতে পারি যে ওসেটিয়া ও জর্জিয়ার মানুষদের প্রতি ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত করে তাদের কথা শোনার ইচ্ছা প্রকাশ করলেই বেদনা এবং যুদ্ধের পরিণতি এড়ানো সম্ভব।

পরবর্তীতে সাম্প্রতিক খবর এবং আরও বিস্তারিত জানানো হবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .