বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভারত: টাটা, জাগুয়ার এবং রোভার

গত বুধবার ঘোষণা হয়েছে যে ভারতের টাটা মটর্স ফোর্ড মটর্সের কাছ থেকে জাগুয়ার আর ল্যান্ড রোভারকে কিনে নিচ্ছে। ফোর্ড মটর্স মিশিগানের তিনটি বৃহৎ গাড়ি নির্মানকারী প্রতিষ্ঠানের একটি। টাটা মটর্সের এই নামকরা দুই গাড়ীর ব্রান্ডকে কিনে নেয়া বিশ্বের সব গুরুত্বপূর্ণ ব্লগগুলোতে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছিল।

গত তিন মাসের স্বল্প সময়েই টাটা মটর্স বিশ্বের গাড়ি বাজারে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। এ বছর জানুয়ারীর প্রথম দিকে টাটা নতুন দিল্লিতে তাদের নতুন কম দামী মডেল ‘ন্যানো’ উন্মুক্ত করেছে যাকে ‘জনগণের গাড়ি’ হিসেবে অভিহিত করা হয়। যে বিষয়টি সবাইকে বিস্মিত করেছে তা হল গাড়িটির অবিশ্বাস্য কম মূল্য – মাত্র ২৫০০ আমেরিকান ডলার। এটি এখন পর্যন্ত বিশ্বে সব চেয়ে সস্তা গাড়ি।

সমস্যাযুক্ত আমেরিকার বৃহৎ গাড়ি নির্মাতা ফোর্ড মটর্সের কাছ থেকে দুটি নামী মডেল জাগুয়ার আর ল্যান্ড রোভারকে কিনে নেয়ার ঘোষণা দিয়ে টাটা মটর্স আরেকটি আলোড়ন সৃষ্টি করল। টাটা মটর্স এর জন্যে ফোর্ডকে ২.৩ বিলিয়ন ডলার দেবে। মার্ক সিলভা জাগুয়ার আর ল্যান্ড রোভার বিক্রির এই খবরকে অনুসরণ করছেন এবং জানাচ্ছন যে এই দুটি গাড়ির উৎপত্তি বিলেত থেকে। তিনি লিখছেন:

রাজত্বের মাথা ঘুরে গেছে: ফোর্ড মটর্সের জাগুয়ার আর ল্যান্ড রোভারের বিক্রির ঘোষণার মাধ্যমে এই নামী ও ঐতিহ্যবাহী দুই ব্রিটিশ গাড়ির ব্র্যান্ড এক ভূতপূর্ব ব্রিটিশ কলোনি থেকে আরেকটিতে গেল। এটিকে আসলে বিশ্বায়ন বলা যাবে না বরং এটি বিশ্বের নিজের কক্ষপথে ঘোরার গল্প…আজকে পৃথিবীর অর্থনীতির ইতিহাসে প্রথম, ভারত যুক্তরাজ্যের দুটি নামকরা গাড়ি ব্রান্ডকে কিনে নিয়েছে।

রাইডিং দ্যা এলিফ্যান্ট ব্লগের জন এলিয়ট চিন্তা করছেন যে রতন টাটা এই দুই ব্রান্ডের পতনের এই চক্রকে থামাতে পারবে কি না। এলিয়ট মন্তব্য করছেন যে রতন টাটা হয়ত পারবেন এদের টেনে তুলতে তবে, তিনি (৭০ বছর) অবসর নিলে কে তার স্থলাভিষিক্ত হবে তার উপর অনেক কিছু নির্ভর করছে।

টাটাই হচ্ছে সেই ব্যক্তি যার নেতৃত্ব এবং ব্যক্তিগত উদ্যোগে একই বছরে ন্যনোর উন্মোচন এবং দুটি আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড কিনে নেয়ার সাফল্য এনে দিয়েছে। এই গুরুদায়িত্ব বহন করার কাজ অপেক্ষা করছে অন্য কারও জন্যে তবে টাটা তার নাম বলছেন না।

ট্রুমরস নামের একটি সিলিকন ভ্যালী ব্লগ টাটার এই দুই ব্রান্ড কিনে নেয়া নিয়ে ঠাট্টা করছে। জাগুয়ারকে এই ব্লগ “বাম টাটা” এবং একটু বিশালাকায় ল্যান্ড রোভারকে “ডান টাটা” বলে এটি অভিহিত করেছে।

মাই ক্যাপিটাল মার্কেট ওয়েবলগের কৃষ্ন রাজ এই চুক্তির মূল বিষয়গুলো উদ্ধৃত করেছে:

ফোর্ড পাওয়ার ট্রেইন, স্ট্যাম্পিং এবং অন্যান্য অংশগুলো সরবরাহ করবে। এছাড়াও এটি কারিগরি সহায়তা দেবে, গবেষণা ও উন্নয়নের ব্যাপারটিও দেখবে। ফোর্ড মটর্স ক্রেডিট জেএলআর (জাগুয়ার ল্যান্ড রোভার) ডিলারদের ১২ মাস অর্থ ঋণ দেবে। জেএলআর কর্মীদের কার্যচুক্তির কোন পরিবর্তন হবে না। ফোর্ড বলেছে যে এই চুক্তি ব্র্যান্ড, গাড়ি তৈরির কারখানা এবং আইপিআর সমন্বয়ে গঠিত। আগামী তিন মাসের মধ্যে এই চুক্তি সম্পাদিত হবে।

ব্র্যান্ড ফ্যাকস ব্লগের গৌরভ শুক্লা লিখছে যে টাটা গ্রুপে ৯৮টি কোম্পানি রয়েছে। এই ব্লগ টাটার বড় কোম্পানিগুলোর ব্যাপারে বিস্তারিত জানাচ্ছে।

অটোপন্ডিত জানাচ্ছে যে টাটা এখন একাধারে সস্তা লো এন্ড এবং হাই এন্ড লাক্সারী গাড়ির নির্মাতা। নিশান্ত কৌশিক লিখছে ভারতীয় কোম্পানি কোন নামী আন্তর্জাতিক কোম্পানীকে কিনে নিচ্ছে এমনটি দশ বছর আগেও শোনা যেত না। তার ব্লগ পোস্ট জানাচ্ছে ভারত কতটা এগিয়েছে এর পরে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .