বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কোস্টারিকা: মুক্ত-বানিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে

অক্টোবরের ৭ তারিখে, কোস্টা রিকা মুক্ত-বানিজ্য সম্পর্কে মতৈক্যের জন্যে একটি গনভোটের মধ্য দিয়ে একটি গনতান্ত্রিক অনুশীলনে অংশগ্রহণ করে এবং এদেশের নাগরিকরা ছিল সেই দিনের জন্য একজন গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহনকারী। এর পক্ষে বিপক্ষে দুই দলের লোকদের জন্যেই এটি চাপা উত্তেজনার একটি দিন ছিল। ‘হা ভোট’ বা ‘না ভোট’ এর সমর্থনকারীরা কেউই নিশ্চিত ছিলনা যে তারা জয়লাভ করবে। তবে রাস্তাঘাটে প্রচার, গানবাজনা ও হট্টগোল উভয় শিবিরের লোকেরাই সমানভাবে করেছে এবং একে অপরকে সম্মান করেই তা করেছে।

সন্ধ্যা ৬টায় ভোট শেষ হলো এবং নির্বাচন কেন্দ্রগুলিতে উত্তেজনা বৃদ্ধি পেল। নেতারা সংবাদপত্রে বক্তব্য দিল এবং তাদের নিজের জয় সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করল। রাত সাড়ে আটটায় সুপ্রীম ইলেক্টোরাল কোর্ট ফলাফল ঘোষণা করল। ৬০% এরও বেশী ভোট গণনা শেষে ‘হা ভোট’ এগিয়ে ছিল। তাদের জয়লাভ প্রায় নিশ্চিত ছিল এবং তারাই পরে জয়লাভ করে। এই ঘোষণার পর এক শিবিরে ছিল উদযাপনের আনন্দ এবং অন্য শিবিরে হতাশা। দুই দলের মধ্যে কিছু বিচ্ছিন্ন বিতর্ক, সংঘর্ষ ইত্যাদি আইন শৃঙ্খলা অবনতির প্রচেষ্টা হয়েছে। কিন্তু এগুলো তেমন গুরুতর আকার ধারন করেনি।

অনেক ব্লগাররা জিজ্ঞেস করেছে যে এর পরে কি হবে, তবে কেউ কেউ মতামত দিয়ছে যে এখনই কিছু বোঝা যাচ্ছে না কারন মুক্ত-বানিজ্য চুক্তি বলবৎ করতে এই সংক্রান্ত কিছু আইন সংসদে পাশ করাতে হবে।

ফুসিল দেস চিসপাস যে এই চুক্তির বিপক্ষে ছিল লিখেছে:

কোস্টারিকার বেশীরভাগ ভোটাররা ভোট দিতে বের হয়েছিল। সংখ্যাগুরু হ্যাঁ ভোট দিল। মুক্ত-বানিজ্য চুক্তি পাশ হল। কোস্টারিকানরা এখন পাবে তারা যা চেয়েছে এই চুক্তির ভালমন্দ সবটুকুই।

ক্রিসালিডা দে লা মারিপোসা ব্লগের আলেজান্দ্রা লিখেছে:

একটি শিক্ষিত দেশ মানে কেবল জনগনের মাঝে উচ্চ স্বাক্ষরতার হার তাই নয়, যে দেশের লোকজন কোন বিষয় দায়িত্ব নিয়ে এবং সমালোচনার সাথে গ্রহন করে সেই দেশ। এরই হয়ত প্রতিফলন ঘটেছে নির্বাচন সংক্রান্ত ই-মেইলের বড় সংখ্যা, এ নিয়ে ওয়েবসাইটের ছড়াছড়ি, এবং মুক্তবানিজ্য সংক্রান্ত ভিডিও ব্লগিংগুলোতে। সেজন্য এই হ্যাঁ অথবা না ভোটের বিষয়ের চেয়েও এই গণভোটের আরও বেশী গুরুত্ব রয়েছে আমার কাছে: এটি একটি ঐতিহাসিক নির্বাচন, যেটি প্রমান করে আমাদের গনতান্ত্রিক পরিপক্কতা, আমাদের শিক্ষার স্তর এবং এটি একটি সমাজ হিসেবে আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যকে দৃশ্যমান করে।

-রয় রজাস

1 টি মন্তব্য

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .