বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কোরিয়াঃ আমাকে বয়স্ক করো না!

কোরিয়াতে দুই ভাবে বয়স হিসাব করা যায়ঃ কোরিয়ান পদ্ধতি আর পশ্চিমা পদ্ধতি। কোরিয়াতে সরকারীভাবে কোরিয়ান পদ্ধতিতে বয়স হিসাব করা হয়। জন্ম নেয়ার সাথে সাথে আপনার বয়স হবে এক। আপনি বছরের যেই সময়েই জন্মগ্রহন করুন না কেন (এমনকি ৩১শে ডিসেম্বর) তাহলে পরবর্তী ১লা জানুয়ারি আপনার বয়স হবে ২। এই পদ্ধতিতে বয়স গণনা সাম্প্রতিক সময় ছাড়া কোন সমস্যা তৈরি করেনি। কোরিয়ানরা যত অন্যদেশের লোকের সাথে মিলিত হচ্ছেন তত তাদের বয়সের ব্যাপারটা ব্যাখ্যা করতে তাদের অসুবিধা হচ্ছে। আর তারা এটাও বুঝতে পারছেন যে অন্য সমবয়স্ক নন-কোরিয়ানদের থেকে তাদেরকে বড়ো ভাবা হচ্ছে। তাছাড়া, বয়স হিসাবে এই বিভেদ আর ভুল বোঝাবুঝির কারনে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সেবাদাসীদের (কম্ফোর্ট উইমেন) দেয়া স্বীকারোক্তি সাম্প্রতিক সময়ে প্রায় মিথ্যা বলে গন্য হচ্ছিল।

আর কেউতো এত তাড়াতাড়ি বুড়ো হতে চায় না। নেটিজেন আপিল নামে এক সাইটে একজন নেটিজেন (ইন্টারনেট ব্যবহারকারী নাগরিক) পশ্চিমা ধারায় বয়সের হিসাব করার আবেদন করেছেন। এই আবেদনে অনেকেই সাড়া দিয়েছেন।

얼마전부터 법정 계량단위가 사회적으로도 공연히 이용되게 되었는데, 나이에 대해서도 우리나이보다는 국제적인 시류에 맞는 나이체계를 가졌으면 하는 바램입니다…
안 그래도 우리나라 남자들은 군대 갔다 오면 2년이 날아가는데 거기에 우리나이까지 더해서…..몇 살은 더 공까먹는 느낌입니다..)

সম্প্রতি ওজন মাপার পদ্ধতি পালটানো হযেছে আর তা জনসাধারন ব্যবহার করছেন। আশা করা যায় যে আন্তর্জাতিক প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী বয়সের হিসাব করাও পাল্টাবে….

কোরিয়ার পুরুষেরা মনে করে যে মিলিটারি প্রশিক্ষনে ২ বছর আর বয়স হিসাবের এই পদ্ধতিতে আরো দুই বছর তাদের জীবন থেকে চলে যায়…তাদের মনে হয় যে জীবন থেকে বেশ কয়েক বছর চলে গেল।

বেশিভাগ নেটিজেনরা এই আপিলের সাথে খুশি হয়ে একমত। বিদেশে থাকা, অন্য দেশের অন্য মানুষের সাথে দেখা হওয়ার সম্ভাবনা আর কম বয়সি থাকার ইচ্ছে – এই পদ্ধতি পাল্টাবার পক্ষে এমন অনেক মতামত আছে।

গার্ল নিনা লিখেছেনঃ

외국 살면서 만으로 계산 하다보니, 한국사람이 나이 물어보면 가끔 난감하더라구요.

আমি বিদেশে থাকি বলে আমার বয়স পশ্চিমা ধারায় হিসাব করেছি। কিন্ত কোরিয়ানরা আমার বয়স জিজ্ঞাসা করলে আমি অসুবিধায় পরি।

কিন্তু কিছু দ্বিমতও আছে। বোমডোল বলেন:

반대합니다. 자꾸 우리의 것을 버리려고 하는데 결코 좋지 않은 일입니다.

আমি এর বিরোধিতা করি। মনে হয় যেন নিজের সংস্কৃতি ত্যাগ করার একটা চেষ্টা চলছে যা ঠিক না।

এমসি৭এল বলেন:

생명존중사상, 윤리적 도적적으로 우리식 나이계산법이 매우 바람직합니다… 이것은 우리가 고칠게 아니라 외국이 고쳐야 한다고 생각하네요… 우리식 나이를 세계 표준 나이 계산법으로~~~

এটি জীবনকে সম্মান করার দর্শন। আমি মনে করি কোরিয়ানদের বয়স হিসেব করার নিয়মটি নৈতিক এবং যুক্তিযুক্ত… অন্যান্য দেশেরগুলো পালটানো উচিত, আমাদেরটি নয়।

হানুয়েল উমুল দেখিয়েছেন কোরিয়াতে বয়স কত গুরুতপূর্ণ। (কোরিয় ভাষায় কথা বলার সময় মানুষের বয়স জানা জরুরি। কোন অচেনা লোকের সাথে প্রথম কথা বলার সময় বয়স জিজ্ঞাসা করা প্রথম ধাপ। এ থেকেই তারা ঠিক করে নেন কাকে কি ভাবে সম্বোধন করতে হবে।)

난 지금이 좋은데?ㅋ 우리만의 나이를 세는 문화자나요 뭐하러 통일? 글구 나이 별로 안중요함 세계적으로 나갈수록…;; 별로 공개도 안하고 사는 외국인들…

আমরা এখন যেমন আছি তাই আমার পছন্দ। এটা আমাদের বয়স হিসাব করার সংস্কৃতি । কেন আমাদের একত্র হতে হবে? আর তা ছাড়া… বয়স এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ না। বিশেষ করে অন্য দেশে গেলে তারা তাদের বয়স বেশি প্রকাশ করে না।

- হেইজিন কিম

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .